Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

প্রতিমাসে দেশে গড়ে ২৩ নারী গণধর্ষণের শিকার

জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৯ মাসে দেশে ৯৭৫টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে 

আপডেট : ০৯ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৩৭ পিএম

সাম্প্রতিক সময়ে নারীদের ওপর ধর্ষণ ও গণধর্ষণের মতো সহিংস ঘটনার কারণে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে থেকেও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে নারীরা। এমনকি এ ধরনের নির্যাতন থেকে রেহাই পাচ্ছে না শিশু ও প্রতিবন্ধীরাও।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর সিলেটের এমসি কলেজে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণের মতো ঘটনা সারাদেশে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়। এ ঘটনার একসপ্তাহ পার না হতেই নোয়াখালীতে নারীকে বিবস্ত্র করে গণধর্ষণ ও নির্যাতনের ঘটনা প্রকাশিত হওয়া সারাদেশে প্রতিবাদ উত্তাল আকার ধারণ করে। ফলে ঘরে-বাইরে কোথাওই নিজেকে নিরাপদ মনে করছে না নারীরা। 

বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যের ওপর ভিত্তি করে মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশে ৯৭৫টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এরমধ্যে ২০৮টি গণধর্ষণের ঘটনা ঘটতে দেখা গেছে। অর্থাৎ গত ৯ মাসের চিত্রানুযায়ী, প্রতিমাসে গড়ে ২৩টি গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।

এরমধ্যে ৭ বছর বয়সী থেকে ১২ বছরের মধ্যে ৬জন, ১৩ বছর থেকে ১৮ বছরের মধ্যে ৫২ জন, ১৯ থেকে ২৪ বছরের মধ্যে ২২ জন, ২৫ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ৭ জন ও ত্রিশোর্ধ্ব ৭ জনের বেশি নারী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। এছাড়া প্রতিবেদনটিতে ১১৪ জন ভুক্তভোগীর বয়স উল্লেখ করা হয়নি।

এ প্রসঙ্গে সংস্থাটির সাবেক নির্বাহী পরিচালক ও মানবাধিকার কর্মী নূর খান লিটন বলেন, “আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর স্বচ্ছতা যথেষ্ট নয়। অনেকক্ষেত্রেই অপরাধীরা পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ পায়। রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় থাকা ব্যক্তিরা এ সুযোগ বেশি পায়। ফলে সাধারণ মানুষ সরকারের ওপর আস্থা রাখতে পারে না।”

যদিও ধর্ষণের মতো ঘটনা বিচারহীনতার কারণে ঘটছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে গত ৬ অক্টোবর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, “প্রতিটি ঘটনায় সঙ্গে সঙ্গে বিচার হচ্ছে।এখানে বিচারহীনতার কোনো বিষয় নেই। যতগুলো ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।” 


About

Popular Links