Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

যাত্রীবাহী লঞ্চের কেবিনে তরুণীর লাশ

ওই তরুণীর গলায় ফিতা পেঁচিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সঙ্গে থাকা ব্যক্তি পালিয়ে গেছেন

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৬:৩৭ পিএম

চাঁদপুর লঞ্চঘাটে একটি যাত্রীবাহী লঞ্চের স্টাফ কেবিন থেকে এক অজ্ঞাত তরুণীর (২০) লাশ উদ্ধার করেছে নৌ-পুলিশ। 

বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) দুপুরে “জমজম” নামে লঞ্চের কেবিন থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। কক্ষটি লঞ্চের কর্মচারি সুজন মোল্লা, রাসেল ও মাসুম ব্যবহার করতেন বলে জানা গেছে।

খবর পেয়ে দুপুর ২টার দিকে জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) স্নিগ্ধা সরকার, চাঁদপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নাসিম উদ্দিন, চাঁদপুর নৌ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. জহিরুল হক ঘটনাস্থলে যান।

লঞ্চটির কর্মচারি সুজন মোল্লা জানান, বুধবার রাত সাড়ে ১১টায় রাজধানীর সদর ঘাট থেকে চাঁদপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে লঞ্চটি। সাড়ে ৬শ’ টাকার বিনিময়ে দুই তরুণ-তরুণীকে কেবিনটি ভাড়া দেওয়া হয়। পরদিন (বৃহস্পতিবার) সকাল যাত্রীরা নেমে যাওয়ার পর সাড়ে ৮টার দিকে কেবিন পরিষ্কার করতে গেলে কক্ষটি তালা লাগানো অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে টিকিট কাউন্টারে খোঁজ নেওয়া হয়। তখন জানা যায়, কেবিনটির যাত্রীরা চাবি ফেরত দেননি। পরে বিকল্প পদ্ধতিতে কেবিনটি খোলা হলে ওই তরুণীর লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়।

প্রাথমিক তথ্যের বরাত দিয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার স্নিগ্ধা সরকার বলেন, গত রাতে ঢাকা থেকে একজন পুরুষের সঙ্গে মেয়েটি লঞ্চে উঠেছিল বলে জানা গেছে। যে কেবিনে তারা উঠেছিলেন সেটি লঞ্চ চালকদের কেবিন। তারা সেটি অনেক সময় ভাড়াও দেন।

তিনি বলেন, সকালে স্টাফরা ওই কেবিনের দরজা বন্ধ অবস্থায় দেখে বিষয়টি পুলিশকে জানালে আমরা ঘটনাস্থলে যাই।

এই পুলিশ কর্মকর্তা আরও বলেন, ওই তরুণীর গলায় ফিতা পেঁচিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সঙ্গে থাকা ব্যক্তি পালিয়ে গেছেন। যেহেতু যাত্রী হিসেবে এক ব্যক্তি কক্ষটি ভাড়া নিয়েছিল, তাই ধারণা করা হচ্ছে হত্যাটি একজনই করতে পারে। তবে ধর্ষণের পর হত্যা হয়েছে কিনা তা ময়নাতদন্তের পরে জানা যাবে। এ ঘটনায় লঞ্চের ৩ কর্মচারিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

About

Popular Links