Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ছাদে নিয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে হত্যা করে বাড়িওয়ালা

জবানবন্দিতে প্রীতম জানান, কম্বল দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে তিনি শিশুটিকে ছাদে নিয়ে যান

আপডেট : ৩০ জানুয়ারি ২০২১, ০৮:৫৫ পিএম

কম্বল দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে খুলনার দৌলতপুরে স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির এক  ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার কথা স্বীকার করেছেন বাড়িওয়ালা প্রীতম।   

শনিবার (৩০ জানুয়ারি) বিকালে খুলনা মেট্রপলিটন ম্যাজিস্ট্রট সারোয়া আহমেদের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এমনটাই জানিয়েছে বাড়িওয়ালা প্রীতম। জবানবন্দি শেষে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।   

জবানবন্দিতে প্রীতম জানান, গত ২২ জানুয়ারি কম্বল দেওয়ার কথা বলে শিশুটিকে নিয়ে তিনি ছাদে যায়। পরে ধর্ষণের চেষ্টা চালালে শিশুটি চিৎকার দেয়। এক পর্যায়ে প্রীতম শিশুটির মাথায় ভারী বস্তু দিয়ে আঘাত করলে শিশুটি জ্ঞান হারায়। এরপর সে ধর্ষণ শেষে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে শিশুটিকে।   

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান আল মামুন জানান, "আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে প্রীতম জানায়, হত্যার পর লাশ বস্তায় ভরে প্রথমে গ্যারেজে সিমেন্টের বস্তার পাশে ও পরে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে বিউটি পার্লারের বাথরুমে লুকিয়ে রাখে সে। তবে এ ঘটনার সাথে আর কেউ জড়িত নয় বলে প্রীতম জানিয়েছে।”   

উল্লেখ্য, গত ২২ জানুয়ারি দুপুরে খেলার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয় তৃতীয় শ্রেণির ওই স্কুলছাত্রী। নিখোঁজের ছয়দিন পর গত ২৮ জানুয়ারি ভবনের নিচতলার সেফটি ট্যাংক থেকে শিশুটির বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।  

এ ঘটনার প্রীতমসহ আটজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে পুলিশ। পরবর্তীতে শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) রাতে প্রীতমকে মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। আটক অপর সাতজনকে ছেড়ে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ওসি হাসান আল মামুন।

About

Popular Links