Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

স্ত্রীর ‘অনৈতিক সম্পর্কের দৃশ্য’ সহ্য করতে না পেরে হত্যা

স্ত্রীর সঙ্গে ইটভাটা শ্রমিকের অনৈতিক সম্পর্কের দৃশ্য দেখে সহ্য করতে না পেরে ছোট ভাইয়ের সহযোগিতায় দু’জনকে হত্যা করে স্বামী
আপডেট : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১১:১০ পিএম

সাতক্ষীরায় স্ত্রীর সঙ্গে ইটভাটা শ্রমিকের অনৈতিক সম্পর্কের দৃশ্য দেখে সহ্য করতে না পেরে ছোট ভাইয়ের সহযোগিতায় দু’জনকে মাথায় আঘাতের পর গলাটিপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে স্বামী। পরে বিষয়টি আত্মহত্যা বলে প্রচার করতে ওড়না ও মাফলার বেঁধে নিহত দু’জনের গলায় ফাঁস লাগিয়ে আম গাছের ডালে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়।

সাতক্ষীরার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম ইয়াসমিন নাহারের কাছে সোমবার (৮ ফেব্রুয়ারি) বিকালে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে পুলিশের হাতে গ্রেফতার সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার শ্রীপতিপুর গ্রামের শেখ আব্দুল হাইয়ের ছেলে ও নিহত ফাতেমা খাতুনের স্বামী শেখ আহসান ওরফে হাসান ও তার ছোট ভাই শেখ আসাদ।

জানা যায়, করিমের সঙ্গে ফাতেমার ধর্ম ভাই বোনের সম্পর্ক ছিল। ফাতেমার স্বামী কিছুটা অপ্রকৃতিস্থ। সে কারণে ফাতেমার সঙ্গে করিম পাড়ের পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে ওঠে। শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) করিম পাড় শ্রীপতিপুর গ্রামে ফাতেমার বাড়িতে আসে। রাতে নির্ধারিত স্থানে না শুয়ে ফাতেমাকে নিয়ে পাশের পরিত্যক্ত চাল বিহীন ঘরে শুয়ে ছিল করিম। গভীর রাতে হাসান স্ত্রীর সঙ্গে করিমের ওই দৃশ্য দেখে ফেলে।

এক পর্যায়ে সে তার ছোট ভাই আসাদকে নিয়ে ওই দু’জনের মাথায় লোহার রড দিয়ে আঘাত করে। পরে তাদেরকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। বিষয়টি আত্মহত্যা হিসেবে প্রচার করতে করিমের মাফলার ও ফাতেমার ওড়না একসাথে বেঁধে দুই প্রান্তে দুই মৃতদেহের গলায় ফাঁস লাগিয়ে বাড়ির সামনের আম গাছের ডালে ঝুলিয়ে দেয় তারা দু’ভাই। 

পরবর্তীতে পুলিশ লাশ দু’টি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রবিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বিকালে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। 

রাতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ফাতেমার স্বামী হাসান ও দেবর আসাদকে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তারা ফাতেমা ও করিমকে হত্যার কথা স্বীকার করে। এ ঘটনায় নিহত করিম পাড়ের বাবা জয়নাল পাড় বাদী হয়ে কারো নাম উল্লেখ না করেই রাতে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। হাসান ও আসাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত লোহার রড জব্দ করা হয়। 

সাতক্ষীরা আদালতের পুলিশ পরিদর্শক অমল কুমার রায় জানান, "জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম ইয়াসমিন নাহারের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি শেষে হাসান ও আসাদকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।"

About

Popular Links