Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

শ্বশুর-শাশুড়ির সেবা করে পুরস্কৃত পুত্রবধূ!

নিজ উদ্যোগে পুত্রবধূদের পুরস্কৃত করেন টাঙ্গাইলের পুলিশ কর্মকর্তা মীর মোশারফ হোসেন

আপডেট : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০২:৩৪ পিএম

শ্বশুর-শাশুড়ির সেবা করলেই পুত্রবধূর হাতে উপহার পৌঁছে দিচ্ছেন টাঙ্গাইলের এক পুলিশ কর্মকর্তা। টাঙ্গাইলের বিখ্যাত তাঁতের শাড়ি, পোড়াবাড়ির চমচম ও ক্রেস্টসহ পুত্রবধূদের হাতে নিজেই তুলে দেন টাঙ্গাইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর মোশারফ হোসেন। 

মঙ্গলবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নিজ বেতনের টাকা থেকে ব্যক্তিগত উদ্যোগে ৩ পুত্রবধূকে এসব উপহার তুলে দেন মীর মোশারফ হোসেন নামে পুলিশের ওই কর্মকর্তা। তার বাড়ি জামালপুরে। দুই ভাই তিন বোনের মধ্যে মোশারফ হোসেন সবার ছোট। 

এমনকি, “বৃদ্ধাশ্রম নয়, পরিবারই হোক বাবা-মায়ের নিরাপদ আবাসস্থল। পুত্রবধূ যদি আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশে তার শ্বশুর-শাশুড়ির খেদমত করে আল্লাহ তাকে আখিরাতে পুরস্কার প্রদান করবেন।” এমন একটি ফেস্টুনও রয়েছে ওই পুলিশ কর্মকর্তার অধীনস্ত থানাটিতে। শ্বশুর-শাশুড়িকে যে সেবা-যত্ন করবে এবং একসাথে বসবাস করবে সেই ভাগ্যবতীকে পুরস্কৃত করা হবে। যোগাযোগের জন্য ফোন নম্বরও উল্লেখ আছে ফেস্টুনটিতে। 

পুরস্কার হাতে পেয়ে উচ্ছ্বসিত মাহমুদা আক্তার বলেন, “আমি পুরস্কার পেয়েছি। এতে নিজের প্রতি আরও আত্মবিশ্বাস বেড়ে গেছে। আমি আমার শ্বশুর-শাশুড়িকে এমনিতেই দেখাশোনা করি। ভবিষ্যতেও একই রকম তাদের সেবা করে যাবো।”

বীর মুক্তিযোদ্ধা আলমগীর হোসেন বলেন, “আমার ছেলে ও ছেলে বৌ আমাদের সাধ্য অনুযায়ী সেবা করে। একজন পুলিশ অফিসার আমার বৌমাকে পুরস্কৃত করেছে। পুরস্কার পেয়ে সে তো আত্মহারা।

এ বিষয়ে ওসি মীর মোশারফ হোসেন ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “বিভিন্ন জায়গায় পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে আমরা লক্ষ্য করেছি এবং আমাদের কাছে অভিযোগ আসে, বৃদ্ধ বয়সে অনেক সন্তানেরই অবহেলায় ও অযত্ন সহ্য করতে হয় বাবা-মাকে। অনেকেই ঠিকমত খাবারও দেয় না, সেবাযত্নও করে না। আর্থিক অবস্থা ভালো থাকা সত্ত্বেও সন্তানরা বাবা-মাকে ছেড়ে বউ বাচ্চা নিয়ে আলাদা বসবাস করে। আমার ব্যক্তিগত উদ্যোগে যাতে কোন মা-বাবাকে অবহেলা ও অযত্নে বৃদ্ধাশ্রমে যেতে না হয়, সেজন্য এ ব্যবস্থা নেওয়া।” 

তিনি আরও বলেন, “প্রথমদিন মঙ্গলবার আমি ৩ জনকে পুরস্কৃত করেছি। আমার এ ধরনের কার্যকম অব্যাহত থাকবে।” 

এর আগে, টাঙ্গাইলের আরেক পুলিশ কর্মকর্তা, টাঙ্গাইল কাগমারী পুলিশ ফাঁড়ির ইনর্চাজ মোশারফ হোসেন কন্যা সন্তান জন্ম হলে ওই বাড়িতে হাজির হয়ে তিনি ব্যক্তিগত উদ্যোগে কন্যা সন্তানের বাবা-মায়ের হাতে তুলে দেন উপহার সামগ্রী।


About

Popular Links