Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কার্টুনিস্ট কিশোরের জামিন আবেদনের ওপর আদেশ বুধবার

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় মুশতাক আহমেদ ও কিশোরের জামিন আবেদন ছয়বার নাকচ হয়। এরমধ্যে গত ২৫ মে কারাগারে মুশতাকের মৃত্যু হয়

আপডেট : ০১ মার্চ ২০২১, ০৭:০২ পিএম

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় কারাবন্দী কার্টুনিস্ট আহমেদ কবীর কিশোরের করা জামিন আবেদনের ওপর আদেশের জন্য আগামী বুধবার (৩ মার্চ) দিন রেখেছেন হাইকোর্ট। এছাড়া একই মামলার আসামি লেখক মুশতাক আহমেদের (৫৩) গাজীপুরের কাশিমপুর হাই-সিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী অবস্থায় মৃত্যুর ঘটনা এফিডেডভিট আকারে আদালতকে জানাতে বলা হয়েছে।

কিশোর ও মুশতাকের জামিন আবেদনের শুনানি করে সোমবার (১ মার্চ) বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

শুনানিতে আবেদনকারীদের আইনজীবী ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া লেখক মুশতাক আহমেদ কারাবন্দী অবস্থায় মৃত্যুবরণ করায় তার নামটি আবেদন থেকে বাদ দেয়ার আবেদন জানান।

তখন আদালত বলেন, সেটি আপনি হলফনামা আকারে জানান। তখন তার জামিন আবেদন অ্যাবেট (বাদ) করা হবে। এরপর কার্টুনিস্ট কিশোরের জামিন আবেদনের ওপর শুনানি শুরু হয়। শুনানিতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের করা ওই মামলায় প্রক্রিয়াগত ত্রুটি ও কার্টুনিস্ট কিশোরের অসুস্থতার কথা জানিয়ে তার জামিনের আরজি জানান আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। শুনানি নিয়ে আদালত ৩ মার্চ আদেশের জন্য রাখেন।

গত বছরের মে মাসে লেখক মুশতাক আহমেদ, কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর, রাষ্ট্রচিন্তার সদস্য দিদারুল ইসলাম ও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের পরিচালক মিনহাজ মান্নানকে র‍্যাব গ্রেপ্তার করে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক কথাবার্তা ও গুজব ছড়ানোর অভিযোগে তারাসহ মোট ১১ জনের বিরুদ্ধে গত বছরের ৫ মে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে র‍্যাব। সেই মামলায় দুজন জামিনে মুক্তি পেলেও মুশতাক ও কিশোরের জামিন আবেদন ছয়বার নাকচ হয়।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, আসামিরা “আই অ্যাম বাংলাদেশি” নামে ফেসবুক পেজে রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি বা সুনাম ক্ষুণ্ন করতে বা বিভ্রান্তি ছড়ানোর উদ্দেশ্যে অপপ্রচার বা গুজবসহ বিভিন্ন ধরনের পোস্ট দিয়েছে, যা জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি এবং আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটায়। ওই পেজের অ্যাডমিন শায়ের জুলকারনাইন এবং আমি কিশোর, আশিক ইমরান, ফিলিপ সমাচার, স্বপন ওয়াহিদ, মোস্তাক আহম্মেদ নামীয় ফেসবুক আইডিসহ পাঁচজন এডিটর পরস্পর যোগসাজশে ফেসবুক পেজটি দীর্ঘদিন ধরে পরিচালনা করছেন।

আহমেদ কবীর কিশোর, তাসনিম খলিল, জুলকারনাইন, শাহেদ আলম ও আসিফ মহিউদ্দিনের মধ্যে “রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক চ্যাটিং” এর প্রমাণ পাওয়া গেছে উল্লেখ করে এজাহারে বলা হয়, তাদের ব্যবহৃত স্যামসাং মোবাইল ফোনে “আমি কিশোর” ফেসবুক অ্যাকাউন্ট লগইন অবস্থায় পাওয়া যায়। আলামত পর্যালোচনা করে রাষ্ট্রবিরোধী পোস্ট, মহামারি করোনাভাইরাস, সরকারদলীয় বিভিন্ন নেতার কার্টুন দিয়ে গুজব ছড়িয়ে জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টির প্রমাণ পাওয়া যায়। এছাড়াও হোয়াটসঅ্যাপ ও ফেসবুক মেসেঞ্জারে তাসনিম খলিল, শায়ের জুলকারনাইন, শাহেদ আলম, আসিফ মহিউদ্দিনের সাথে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক চ্যাটিংয়ের প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে অভিযোগে বলা হয়।

গত ১৩ জানুয়ারি এ মামলায় কার্টুনিস্ট আহমেদ কবীর কিশোর, রাষ্ট্রচিন্তার সদস্য দিদারুল ভূঁইয়া ও লেখক মুশতাক আহমেদকে (কারাগারে সদ্য প্রয়াত) অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দাখিল করে রমনা থানা পুলিশ, যেখানে জুলকারনাইন খান ওরফে সামিসহ অন্য আটজনকে অব্যাহতির আবেদন করা হয়। এরপর রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ১০ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আসসামছ জগলুল হোসেন মামলাটি অধিকতর তদন্তে সিটিটিসিকে নির্দেশ দেন।

About

Popular Links