Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

নারায়ণগঞ্জে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

হাসপাতালটিতে ইঞ্জেকশন দেওয়ার পরই ওই প্রসূতির মৃত্যু হয় বলে দাবি নিহতের স্বামীর

আপডেট : ১৬ মার্চ ২০২১, ০২:৩৮ পিএম

নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর সেন্ট্রাল জেনারেল হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার (১৫ মার্চ) রাত ১০টার দিকে শহরের খানপুর জোড়া ট্যাংকী সংলগ্ন সেন্ট্রাল জেনারেল হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় লাশ নিয়ে হাসপাতাল ঘেরাওসহ বিক্ষোভ এবং ভাঙচুর করেছেন বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ও নিহতের স্বজনরা। 

নিহতের নাম পান্না বেগম (২৮)। তিনি শহরের ডনচেম্বার এলাকার বাসিন্দা জিসান আহমেদের স্ত্রী।

নিহতের পরিবারের অভিযোগ, সোমবার দুপুর বারোটার দিকে প্রসব যন্ত্রণা শুরু হলে পান্না বেগমকে খানপুর এলাকার সেন্ট্রাল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। বিকেল তিনটার দিকে খানপুর ৩শ’ শয্যা হাসপাতালের গাইনি চিকিৎসক মিশকাত জাহান হেনার তত্ত্বাবধানে অস্ত্রোপচার (সিজারিয়ান অপারেশেন) এর মাধ্যমে একটি কন্যা সন্তান জন্ম দেন পান্না বেগম।

এ সময় শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী তার শরীরে একটি ইঞ্জেকশন দেন কর্তব্যরত এক নার্স। এতে তার অবস্থার আরও অবনতি হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু ঢাকা মেডিকেলের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা দেন।

এ খবর জানার পর নিহতের স্বজনরা ও এলাকাবাসী লাশ নিয়ে এসে হাসপাতাল ঘেরাও করে বিক্ষোভ ও হাসতালের আসবাবপত্র ভাঙচুর করেন। খবর পেয়ে সদর মডেল থানার পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

নিহতের স্বামী জিসান আহমেদ জানান, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার আগেই আমার স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মৃত্যুর বিষয়টি গোপন রেখে দায় এড়াতে আমাদের কৌশলে ঢাকা পাঠিয়ে দেন। সেন্ট্রাল হাসপাতালে ইঞ্জেকশন দেওয়ার পরই ওই প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে, এমন দাবিও করেন তিনি।

এ বিষয়ে হাসপাতালের পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান জানান, যা হয়েছে তার স্বামীর সামনেই হয়েছে। এ ব্যাপারে নিহতের স্বামী যা বলবেন তাই আমরা মেনে নেব।"

সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. ওয়ালিউল্লাহ্ ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, এ ব্যাপারে আমাদের কাছে কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।


About

Popular Links