Saturday, May 18, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

স্বয়ংক্রিয় ট্রাফিক সিগন্যাল নিয়ন্ত্রণ করবে পুলিশ

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালে প্রকল্পের কাজ শেষ হবার পর স্বয়ংক্রিয় সিগন্যালগুলো চালু করা হলে ট্রাফিক পরিস্থতি আরও জটিল অবস্থা ধারণ করে।

আপডেট : ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১:১৫ এএম

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনার প্রেক্ষিতে রাজধানীর ডিজিটাল ট্রাফিক সিগন্যালগুলোর নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা ট্রাফিক পুলিশের কাছে হাতে দিয়ে দেওয়া হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে অকেজো অবস্থায় পড়ে থাকার পর অবশেষে স্বয়ংক্রিয় বৈদ্যুতিক সিগন্যাল বাতিগুলোর রিমোট কন্ট্রোল পুলিশের কাছে হস্তান্তরের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সিটি করপোরেশনের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে এসব তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। 

এই প্রকল্পের জন্য ইতোমধ্যেই দেশের বাইরে থেকে প্রতিটি ট্রাফিক ইন্টারসেকশনের জন্য রিমোট আমদানি করা হয়েছে। এছাড়াও বেশকিছু যন্ত্রাংশেও বিশেষ পরিবর্তন আনা হচ্ছে।     

কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে যে, ২০০১-০২ অর্থবছরে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে যানজট নিরসনের জন্য নেওয়া  ঢাকা আরবান ট্রান্সপোর্ট’ প্রকল্পের অধীনে প্রায় ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭০টি সড়ক মোড়ে আধুনিক ট্রাফিক সিগন্যাল বাতি বসানো হলেও নানা ত্রুটির কারণে এর বাস্তব প্রয়োগ সম্ভব হয়নি। মূলত এইসব সিগন্যালে যে সময় নির্ধারণ করা ছিল তার সাথে রাস্তায় চলমান গাড়ির সংখ্যার মিল না থাকায় কিছুদিন পরীক্ষামুলক ভাবে চালালেও পড়ে তা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয় পুলিশ কর্তৃপক্ষ।      

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালে প্রকল্পের কাজ শেষ হবার পর স্বয়ংক্রিয় সিগন্যালগুলো চালু করা হলে ট্রাফিক পরিস্থতি আরও জটিল অবস্থা ধারণ করে। যার প্রেক্ষিতে পরিস্থিতি সামাল দিতে স্বয়ংক্রিয় সিগন্যালের কাউন্টডাউন বন্ধ করে আগের মতো হাত দিয়ে সিগন্যাল ব্যবস্থায় ফিরে যেতে বাধ্য হয় ট্রাফিক পুলিশ।    

আগের ব্যর্থতাকে মাথায় রেখে এবার যন্ত্রগুলোর কার্যপদ্ধতিতে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। নতুন এই ব্যবস্থায় রাজধানীর মোট ৭০টি সড়ক মোডের মধ্যে ৬২টি ইন্টারসেকশনকে রিমোট কন্ট্রোল অটোমেটিক বৈদ্যুতিক সিগন্যালের আওতায় আনা হচ্ছে। এর বাস্তবায়নের জন্য কন্ট্রোলারের রিমোট সিস্টেমের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ডায়াগ্রামের পরিবর্তন আনা হচ্ছে।

দুটি ইন্টারসেকসনকে প্রাথমিক অবস্থায়  নির্ধারণ করা হয়েছে। এ দুটি হচ্ছে বাংলামোটর ও হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল মোড়। শনিবার থেকে এ দুটি ইন্টারসেকশনের ডায়াগ্রামের পরিবর্তন এনে পরীক্ষামূলক কার্যক্রম শুরু হবে। সফলতা আসলে পুরদমে শুরু হবে এ কার্যক্রম এবং পর্যায়ক্রমে অন্যান্য ইন্টারসেকশনগুলোতে এই রিমোট কন্ট্রোল অটোমেটিক বৈদ্যুতিক সিগনাল ব্যবস্থাপনা চালু করা হবে।

উল্লেখ্য, এই প্রকল্প সফল হলে পুলিশ বক্সে বসেই সিগন্যাল নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে ট্রাফিক পুলিশ। তবে, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন সূত্রে জানা গেছে যে এই আধুনিক ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণের মতো কারিগরি প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জনবল পুলিশের এখনও নেই। 

এব্যাপারে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) এর অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মীর রেজাউল আলমকে জিজ্ঞাসা করা হলেও তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

সূত্রবাংলা ট্রিবিউন।

About

Popular Links