Sunday, June 16, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কারাগারে ইবাদত করে দিন পার করছে বাবা-মায়ের খুনি ঐশী

বাবা-মাকে হত্যার দায়ে ২০১৫ সালে ঐশীকে ফাঁসির আদেশ দেয় বিচারিক আদালত

আপডেট : ১৫ মে ২০২১, ০৬:১৯ পিএম

বাবা-মাকে খুন করার অভিযোগে দণ্ডপ্রাপ্ত মেয়ে ঐশী রহমান এখন ধর্মীয় বিধি-নিষেধের মধ্যে দিনাতিপাত করছে। ২০১৩ সালে রাজধানীর চামেলীবাগে নিজ বাসায় মেয়ের হাতে খুন হন পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের পলিটিক্যাল শাখার পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) মাহফুজুর রহমান ও মা স্বপ্না রহমান। 

বাবা-মাকে খুনের দায়ে আদালতে যাবজ্জীবন দণ্ড পাওয়া ঐশী এখন গাজীপুরের কাশিমপুর মহিলা কারাগারে বন্দি। কারাপ্রকোষ্ঠে কীভাবে তার একাকী সময় কাটছে সে বিষয়ে কারা কর্তপক্ষ নানা ধরনের তথ্য দিয়েছেন।

কারা কর্তৃপক্ষের ভাষ্যমতে, ঐশী পবিত্র রমজান মাসে নিয়মিত রোজা রেখেছেন ও নামাজ পড়ে দিন পার করেছেন। বিভিন্ন ধরনের বইপত্র পড়ে সময় কাটান বন্দি এ তরুণী। 

কাশিমপুর মহিলা কারাগারের জেলার হোসনে আরা বীথি জানান, কারাগারে ভালোই আছে ঐশী। নামাজ-কালাম পড়ে সময় কাটে তার। এছাড়া সে কিছু বইপত্র পড়ে। কিছুদিন আগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মজীবনী “কারাগারের রোজনামচা” বইটি পড়তে দেখেছেন তিনি।

জানা গেছে, কারাগারে যাওয়ার পর থেকে স্বাভাবিক জীবনযাপন করছেন ঐশী। তবে সে এখন অনেক চুপচাপ থাকে।

জেলার আরও বলেন, “করোনাভাইরাসকালীন পরিবারের কেউ ঐশীর খোঁজখবর নিতে আসেনি। এসময়ে সাক্ষাৎ একেবারেই বন্ধ। ঈদের দিনে আমাদের কারাগারের বিশেষ খাবারের ব্যবস্থা থাকে। ঈদের সকালে সেমাই খেতে দেয়া হয়েছিলো। এছাড়া দুপুরে ছিল গরুর গোশত, পোলাও আর সালাত। রাতে ছিলো রুই মাছ, ভাত সবজি। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কয়েদীদের নতুন পোশাকও দেওয়া হয়েছিলো।” 

কারাগারে বসে কেউ চাইলে তিন মিনিট তার পরিবারের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথাও বলতে পারে। ঐশীও চাইলে সেই সুযোগটি নিতে পারে বলে জানান জেলার হোসনে আরা।

প্রসঙ্গত, বাবা-মাকে হত্যার দায়ে ২০১৫ সালে ঐশীকে ফাঁসির আদেশ দেয় বিচারিক আদালত। পরে আপিলে ২০১৭ সালের ৬ জুন উচ্চ আদালত ঐশীর সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন করেন। সেই থেকে ঐশী স্থায়ীভাবে কাশিমপুর মহিলা কারাগারে আছেন। এর আগে ২০১৩ সালের ১৬ আগস্ট সকালে রাজধানীর চামেলীবাগের বাসা থেকে পুলিশ পরিদর্শক মাহফুজুর রহমান ও তার স্ত্রী স্বপ্না রহমানের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এর আগেই ঐশী বাসা থেকে পালিয়ে যায়।

পরদিন ১৭ আগস্ট মাহফুজুর রহমানের ভাই মশিউর রহমান এ ঘটনায় পল্টন থানায় হত্যা মামলা করেন। ওই দিনই ঐশী পল্টন থানায় আত্মসমর্পণ করে তার বাবা-মাকে খুন করার কথা জানায়।

২০১৩ সালের ২৪ আগস্ট আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন ঐশী। পরে ওই জবানবন্দি প্রত্যাহারের জন্য আবেদন করেছিল। কিন্তু সাক্ষ্য, আলামত ও অন্যান্য যুক্তির পরিপ্রেক্ষিতে তা নাকচ হয়ে যায়।

About

Popular Links