Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

গ্রামীণফোন থেকে একসাথে ১৫৯ কর্মী ছাঁটাই

ছাঁটাই হওয়া ১৫৯ জন কর্মীর মধ্যে গ্রামীণফোন সেন্টারের (কাস্টমার কেয়ার) ৩৯ জন এবং টেকনোলজি বিভাগের (রিজিওনাল অপারেশন) ১২০ জন

আপডেট : ২৪ জুন ২০২১, ১১:৪০ এএম

দেশের সর্ববৃহৎ মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোন রবিবার (২০ জুন) সন্ধ্যায় এক ইমেইলের মাধ্যমে ১৫৯ জন কর্মীকে চাকরি থেকে ছাঁটাই করেছে। তারা গ্রামীণফোনের বিভিন্ন পদে কর্মরত ছিলেন। তাদেরকে স্বেচ্ছা অবসর স্কিমের (ভিআরএস) আওতায় অবসর নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হলেও তারা সে সুযোগ গ্রহণ করেননি।

ছাঁটাই হওয়া ১৫৯ জন কর্মীর মধ্যে গ্রামীণফোন সেন্টারের (কাস্টমার কেয়ার) ৩৯ জন এবং টেকনোলজি বিভাগের (রিজিওনাল অপারেশন) ১২০ জন। 

গ্রামীণফোন থেকে পাওয়া এক বিবৃতি থেকে জানা যায়, ছাঁটাইকৃত কর্মীরা প্রয়োজনের অতিরিক্ত ছিলেন এবং গত ১৩ মাস ধরে তাদের কোনও দায়িত্ব ছিল না। নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে গ্রামীণফোন দেশের আইন অনুযায়ী উক্ত কর্মীদের ছাঁটাই করেছে। গ্রামীণফোন তার কর্মীদের ব্যাপারে যত্নশীল, এমনকি যেসব কর্মী গ্রামীণফোনের বাইরে ক্যারিয়ার গড়তে চাইছেন তাদের ক্ষেত্রেও। বাইরে ক্যারিয়ার গড়তে চাওয়াদের সহায়তায় গ্রামীণফোন স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা স্কিমসহ আকর্ষণীয় স্বেচ্ছা অবসর স্কিম (ভিআরএস) দিয়ে থাকে। 

বিবৃতিতে আরও জানা যায়, গ্রামীণফোন এসব কর্মীদের সহায়তার জন্য একটি স্কিল ডেভেলপমেন্ট সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেছে। গ্রামীণফোন কঠোরভাবে কর্মসংস্থানের শর্তাদি ও দেশের আইন মেনে চলে। 

গ্রামীণফোন আরও বলেছে, তাদের বর্তমান ভিআরএস স্কিমটি কর্মীদের চাকরির মেয়াদ ও পদমর্যাদা বিবেচনায় ১০০ মাস পর্যন্ত বেতনের সমান আর্থিক সুরক্ষা দেয়। এছাড়াও অবসরে যাওয়ার পরও দুই বছর পর্যন্ত গ্রামীণফোনে কর্মরত অবস্থায় পাওয়া সুবিধা অব্যাহত থাকবে। স্বাস্থ্য ও জীবন বীমার আওতায় অবসরে যাওয়া কর্মী দুই বছর পর্যন্ত তাদের পরিবারের জন্য একই সুবিধা পাবেন। 

উল্লেখ্য, গত বছর স্বেচ্ছা অবসর স্কিম (ভিআরএস) নেওয়ার আহবান জানালে এই স্কিমের আওতায় গ্রামীণফোনের প্রায় ১০০ কর্মী চাকরি ছাড়েন। চলতি বছরের ৩ জুন আবারও এই স্কিমে চাকরি ছাড়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়। ১৭ জুনের মধ্যে তারা সেই স্কিম নিতে চায় কিনা সেটি গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষকে জানাতে বলা হয়। প্রায় একশ কর্মী এবারও স্বেচ্ছা অবসরের আগ্রহ দেখিয়েছিলেন।

About

Popular Links