Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

দাড়ি কেটেও পার পেল না 'জীনের বাদশা'!

ভণ্ড সাধু তার মুখের দাড়ি কেটে ছদ্মবেশে পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ করতে বাড়িতে আসে

আপডেট : ২৭ জুন ২০২১, ০৭:৫৪ পিএম

রাজবাড়ীর পাংশায় "জীনের" মাধ্যমে বড়লোক বানিয়ে দেওয়ার প্রলোভনে নবম ও দশম শ্রেণির দুই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে সবুর মন্ডল ওরফে সবুজ (৫৫) নামের এক ভণ্ড সাধুকে শনিবার (২৬ জুন) রাতে গ্রেফতার করেছে পাংশা থানা পুলিশ। তিনি একই উপজেলার কলিমহর ইউনিয়নের প্রাণপুর গ্রামের মৃত ভোলা প্রামাণিকের ছেলে।

রবিবার (২৭ জুন) সকাল ১১ টায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে পাংশা থানা পুলিশ।

থানা সূত্রে জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে জীনের মাধ্যমে বড়লোক বানিয়ে দেওয়ার প্রলোভনে দুই স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণকারী তার মুখের দাড়ি কেটে ছদ্মবেশে পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ করতে বাড়িতে এসেছে। এরপর পাংশা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মাসুদুর রহমানের নেতৃত্বে বাড়ির পূর্বপাশ থেকে তাকে গ্রেফতার করে পাংশা থানা পুলিশ।

উল্লেখ্য, জীনের ভয় দেখিয়ে দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় গত ১৫ জুন রাজবাড়ী নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল আদালতে নবম শ্রেণির ছাত্রীর বাবা এবং দশম শ্রেণির ছাত্রীর বোন বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সংশোধনী ২০০৩) এর ৯ (১) ধারায় পৃথক পৃথকভাবে দুইটি মামলা দায়ের করেন। আদালত পাংশা থানাকে নিয়মিত মামলা হিসেবে গ্রহণ করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন।

এর আগে ভুক্তভোগী নবম শ্রেণির ওই ছাত্রী জানায়, অভিযুক্ত সবুর জিনের সাহায্যে তাদের পুরো পরিবারকে ধনী বানিয়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছিলেন। গত মে মাসের শেষ দিকে এক রাতে সবুর তার বাবাকে এক গ্লাস পানি নিয়ে বাড়ির পাশে থাকা একটি তালগাছের নিচে মেয়েকে (ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী) পাঠাতে বলেন। পরে পানি নিয়ে সেখানে গেলে তার হাত বেঁধে ফেলেন অভিযুক্ত সবুর।

ওই কিশোরী আরও বলেন, “৪১ দিন জিনের ইচ্ছা পূরণ করতে দিতে হবে বলে সবুর আমাকে জানায়। এতে আমাদের পরিবারের ভাগ্য বদলে যাবে। আমি চিৎকার দিতে গেলে জিন আমার বাবাকে মেরে ফেলবে হুমকি দেয় সবুর। এমনকি কাউকে কিছু বললে আমার পুরো পরিবারকে জিন দিয়ে ধ্বংস করে ফেলার ভয় দেখায়। এভাবে ভয় দেখিয়ে দুইবার ধর্ষণ করে সবুর।”

অপর ভুক্তভোগী দশম শ্রেণির ছাত্রী বলে, “আমি আমার বড় বোনের বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলাম। সেখানেই একদিন সবুর আসেন এবং তার বোন ও দুলাভাইকে বড়লোক করে দেওয়ার প্রলোভন দেখান। এ সময় সবুর তাদের বলেন, সবুরের বাড়িতে যেয়ে ওই ছাত্রী যদি জিনের আসরে উপস্থিত না হন তাহলে তাদের পরিবারের বড় ধরনের ক্ষতি হবে।”

ওই ছাত্রী আরও জানান, “মে মাসের শেষ দিকে এক রাতে সবুরের বাড়িতে জিনের আসরে আমাকে যেতে হয়। এসময় আমাকে দুই রাকাত নফল নামাজ আদায় করতে বলে সবুর। নামাজ শেষ হলেই কালো রঙের জোব্বা পরে ঘরের আলো নিভিয়ে আমার সামনে আসে সে। আর বলে,  ‘আমি জিন। এখন সবুরের রূপ ধারণ করে সামনে এসেছি। আমার ইচ্ছা পূরণ করতে হবে।’ এভাবে ভয় দেখিয়ে আমাকে চারবার ধর্ষণ করে সবুর।”

About

Popular Links