Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বিকেল হতেই অলিগলিতে নেমে এসেছিলেন যুবকেরা

অনেকে বের হয়েছিলেন লকডাউন কেমন হচ্ছে সেটি দেখতে। এছাড়া কোনো কোনো গলিতে জটলা করে যুবকদের আড্ডা দিতেও দেখা গেছে

আপডেট : ০২ জুলাই ২০২১, ০২:৩৩ পিএম

করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আজ শুক্রবার (২ জুলাই) কঠোর লকডাউনের দ্বিতীয় দিন। পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাদের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থায় শ্রমিক আনা-নেওয়ার নির্দেশনা থাকলেও সেটি মানছেন না গাজীপুরের অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান। ফলে ভোগান্তিতে পড়তে হয় পোশাক শ্রমিকদের। হেঁটে ও রিকশায় তাদেরকে যাতায়াত করতে দেখা গেছে। 

অন্যদিকে পূর্বের লকডাউনগুলোতে সড়কে সিএনজি, অটোরিকশা ও মোটরসাইকেল চলাচল করতে দেখা গেলেও এবার গাজীপুরের সড়ক-মহাসড়কে দেখা যায়নি এসব যানবাহন। ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক ও রিকশা বন্ধ থাকায় সড়কে রিকশার পরিমাণও ছিল বেশ কম। 

সরেজমিনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের টঙ্গী বাজার, গাজীপুরা, বড়বাড়ি এলাকায় দেখা যায় পুলিশের কঠোর নজরদারি। ঢাকা থেকে গাজীপুরে প্রবেশ করতেই টঙ্গী বাজার এলাকায় গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। সড়কের অপর পাশে ঢাকামুখি রাস্তায়ও বসানো হয়েছে টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশের চেকপোস্ট। 

এসব চেকপোস্টে দায়িত্বরত ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ সদস্যরা লকডাউনের আওতাবহির্ভূত পরিবহন ছাড়া সব ধরনের ছোটবাহন আটকে দিচ্ছেন। প্রশাসনের কঠোর অবস্থানের কারণে গাড়ি ঘুরিয়ে চলে যেতে বাধ্য হচ্ছেন অনেকেই।

টঙ্গীর বিসিক এলাকার বিভিন্ন পোশাক কারখানা ঘুরে দেখা যায়, স্বাস্থ্যবিধি মেনে কারখানায় যোগ দিচ্ছেন শ্রমিকরা। কারখানায় ঢুকতে শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করে কারখানায় প্রবেশ করানো হচ্ছে। তবে ছোট ছোট কারখানাগুলোতে এসব স্বাস্থ্যবিধি মানতে দেখা যায়নি।

এর আগে, গত বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) লকডাউনের প্রথম দিন সকালে গাজীপুরের প্রধান সড়কগুলোতে জনসাধারণের চলাচল কম থাকলেও বিকেলে শহরের বিভিন্ন অলিগলিতে জনসমাগম লক্ষ্য করা যায়; যাদের অধিকাংশই তরুণ-যুবক। জানতে চাইলে তাদের অনেকেই প্রয়োজনীয় পণ্য-দ্রব্য কিনতে বের হয়েছেন বলে দাবি করেন। অনেকে আবার বের হয়েছেন লকডাউন কেমন হচ্ছে সেটি দেখতে। কেউ কেউ আবার কোনো কারণও দেখাতে পারেননি। এছাড়া কোনো কোনো গলিতে জটলা করে যুবকদের আড্ডা দিতেও দেখা গেছে।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি’র) উপ-কমিশনার (অপরাধ-দক্ষিন) মোহাম্মদ ইলতুৎ মিশ  জানান, লকডাউনে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। পণ্যবাহী গাড়ি ছাড়া অন্য কোনো গাড়ি চলতে দেওয়া হচ্ছে না। বিভিন্ন অলিগলিতে পুলিশের টহল টিম নজরদারি করছে। জরুরি প্রয়োজনে যারা ঘর থেকে বের হচ্ছে তাদেরকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য সতর্ক করে দেওয়া হচ্ছে।

About

Popular Links