Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

৪ ঘণ্টা পর বন্ধ থাকার পর বরিশালে বাস চলাচল স্বাভাবিক

শুক্রবার দুপুর দুইটা হতে বাস চলাচল শুরু হয় এবং বিকাল তিনটা থেকে বরিশাল হয়ে স্বল্প ও দুরপাল্লার যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে যায়

আপডেট : ১৬ জুলাই ২০২১, ০৫:২৬ পিএম

বাস মালিক ও শ্রমিকদের ওপর হামলাকারীদের গ্রেফতারের আশ্বাসে ৪ ঘন্টা বন্ধ থাকার পর বরিশালে বাস চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। শুক্রবার (১৬ জুলাই) দুপুর দুইটা থেকে বাস চলাচল শুরু হয় এবং বিকাল তিনটা থেকে স্বল্প দূরত্বের ও দুরপাল্লার যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

এর আগে দুপুর সোয়া ১টায় বরিশাল কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল নথুলাবাদে বাস ধর্মঘট স্থগিতের ঘোষণা দেন বরিশাল জেলা বাস মালিক গ্রুপের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কিশোর কুমার দে।

তিনি জানান, "বৃহস্পতিবার কথিত শ্রমিক নেতা সুলতান মাহামুদ তার লোকজন নিয়ে রুপাতলী বাস টার্মিনাল এলাকায় শ্রমিক ও মালিক নেতাদের ওপর হামলা চালায়। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়। ওই ঘটনার প্রতিবাদে বাস চলাচল বন্ধ রাখা হয় এবং প্রশাসনের আশ্বাসে ৪ ঘণ্টা পর বাস চলাচল শুরু হয়।"

শ্রমিকরা জানান, "বরিশাল জেলা বাস, মিনিবাস, কোচ ও মাইক্রোবাসে শ্রমিক ইউনিয়নের নতুন দু'টি কমিটি গঠনের পর থেকে শ্রমিক নেতাদের মধ্যে নানান সমস্যা দেখা দেয়। বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় টার্মিনাল ভবনের সামনে সুলতান মাহামুদ-সহিদুল ইসলাম গ্রুপের সাথে পরিমল চন্দ্র দাস-শাহরিয়ার বাবুর গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। এতে গোটা টার্মিনাল এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে। এর কিছুক্ষণের মধ্যে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এরপর বাবু ও পরিমলের নেতৃত্বাধীন শ্রমিকদের বিক্ষোভের মুখে পুলিশ সুলতান মাহামুদসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা গ্রহণ করে।"

তবে প্রশাসনের আশ্বাসে মামলা দায়ের হলেও এ অব্দি কাউকে গ্রেফতার করেনি। তাই শ্রমিকদের দেয়া ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম শেষ হলেও কেউ গ্রেফতার না হওয়ায় শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে রুপাতলী থেকে ১৭ রুটে পুনরায় বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর তাদের কর্মসূচিতে একাত্মতা প্রকাশ করে কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল নথুল্লাবাদ থেকেও আন্তঃজেলার ১৪টি ও দূরপাল্লার সব রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। ফলে বরিশালের সাথে বাসে যাত্রী পরিবহন বন্ধ হয়ে যায়।

এদিকে বাস চলাচল স্বাভাবিক হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রুপাতলী জেলা বাস- মিনিবাস-কোচ ও মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আহমেদ শাহরিয়ার বাবু।

তিনি জানান, "স্থানীয় প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আশ্বস্ত করেছেন আমাদের শ্রমিক নেতাদের ওপর হামলাকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসবেন। পাশাপাশি মেয়র মহোদয় জনসাধারণের ভোগান্তি লাঘবে আমাদের আন্দোলন প্রত্যাহারের জন্য বলেছেন। আমরা তার অনুরোধে জনগণের ভোগান্তি কমাতে সড়ক অবরোধ তুলে নিয়েছি এবং যানবাহন চালানো শুরু করেছি।"

আন্দোলন কর্মসূচি শেষ হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, "স্বল্প সময়ে গ্রেফতারের আশ্বাস দিয়েছে প্রশাসন। তা না করলে আবারো কঠোর আন্দোলনে যাবে শ্রমিকরা।"

About

Popular Links