Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ডিজিটাল আইন সংশোধনের দাবিতে সোমবার সম্পাদক পরিষদের মানববন্ধন

গত ৮ অক্টোবর সাংবাদিকসহ বিভিন্ন মহলের আপত্তির মুখেই সংসদে পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা বিলে  স্বাক্ষর করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ

আপডেট : ১৩ অক্টোবর ২০১৮, ০৩:০২ পিএম

আগামী ১৫ অক্টোবর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিতর্কিত নয়টি ধারা সংশোধনের দাবিতে  জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করবে সম্পাদক পরিষদ। শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত একটি লিখিত বিবৃতি পাঠ করে সম্পাদক পরিষদের পক্ষে বিভিন্ন দাবি উপস্থাপন করেন।    

এই বিবৃতিতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৮, ২১, ২৫, ২৮, ২৯, ৩১, ৩২, ৪৩ ও ৫৩ ধারাগুলো গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করবে বলে উল্লেখ করা হয়।  

এদিকে সংবাদ সম্মেলনে সম্পাদক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও ডেইলির স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনাম বলেন, "আমাদের পরিষদ কখনোই আইনটি বাতিল চায়নি। নির্দিষ্ট কয়েকটি ধারার পরিবর্তন চেয়েছে।"

তিনি সংবাদ সম্মেলনে আরো বলেন, "ভারত সরকার এ ধরনের একটি আইন পাস করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তাদের হাইকোর্ট এটিকে অসাংবিধানিক অভিহিত করে বাতিল করে দেয়।" এরপর সংবাদ সম্মেলনে সম্পাদক পরিষদের সাত-দফা দাবি তুলে ধরা হয়।

এর আগে গত ৮ অক্টোবর সাংবাদিকসহ বিভিন্ন মহলের আপত্তির মুখেই সংসদে পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা বিলে  স্বাক্ষর করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

উল্লেখ্য, রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের পর যেকোন বিল আইন হিসেবে গণ্য হয়। প্রসঙ্গত, গত মাসে ১০ম সংসদের ২২তম অধিবেশনে ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল ২০১৮ পাস হয়। 

সাইবার অপরাধ, ধর্মীয় অনভূতিতে আঘাত, মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু নিয়ে নেতিবাচক প্রোপাগাণ্ডা ঠেকাতে এবং অনলাইনের মাধ্যমে অবৈধভাবে গুজব ছড়ানোসহ বিভিন্ন অপরাধ মোকাবেলায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রয়োগ করা হবে বলে জানানো হয়।

এদিকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৮, ২১, ২৫, ২৮, ২৯, ৩১, ৩২, ৪৩ ও ৫৩ ধারা নিয়ে আপত্তি জানিয়ে সংশোধনের দাবি সাংবাদিকমহল থেকে জানানো হলেও সরকারের পক্ষ সাংবাদিকদের যদি নেতিবাচক কোনো সংবাদ প্রকাশের ইচ্ছা না থাকে তাহলে ভীত হওয়ার কোনো কারণ নেই বলে উল্লেখ করা হয় এবং রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে বিলটিকে আইন হিসেবে পাস করানো হয়

About

Popular Links