Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী: কোভিড পরিস্থিতির অবনতি ঘটলে আবারও লকডাউন

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটলে আবারও বিধিনিষেধ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

আপডেট : ১২ আগস্ট ২০২১, ০২:২৫ পিএম

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটলে আবারও বিধিনিষেধ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। তিনি বলেন, “জীবিকার তাগিদে বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়েছে। তবে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটলে আবারও বিধিনিষেধ দেওয়া হবে।”

বৃহস্পতিবার (১২ আগস্ট) সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতির অবনতি ঘটলে সরকারের পরবর্তী কৌশল কি হবে, এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, “আমরা দুটি কৌশল অবলম্বন করবো। একটি হচ্ছে লকডাউন বা বিধিনিষেধ দেওয়া। আরেকটি হচ্ছে ছেড়ে দেওয়া। কিন্তু সবাইকে মাস্ক পরতে হবে।”

তাহলে পরিস্থিতি খারাপ হলে আবারও লকডাউন দেবেন, এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, “হ্যাঁ, পৃথিবীর যে কোন দেশে বাড়লেই, যেমন অস্ট্রেলিয়াতে সেনাবাহিনী নামানো হয়েছে, কারফিউ জারি করা হয়েছে। আমেরিকাতেও দেওয়া হয়েছে। কারণ এর কোনো বিকল্প নেই।”

প্রসঙ্গত, আগামী ১৯ আগস্ট থেকে বিনোদন কেন্দ্র ও গণপরিবহন পুরোপুরি খোলার অনুমতি দিয়েছে সরকার। করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণের জন্য বাংলাদেশ সরকার সর্বশেষ যে বিধিনিষেধ আরোপ করেছিল সেটি শিথিল করে ৮ আগস্ট প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার। সে অনুযায়ী ১১ আগস্ট থেকে কিছু শর্ত মেনে গণপরিবহন চলাচল শুরু হয়েছে।

আগামী ১৯ আগস্ট থেকে চার শর্তে দেশের সকল গণপরিবহন এবং পর্যটন কার্যক্রম শুরু করা যাবে।

শর্তগুলো হচ্ছে-

১.১: যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে সড়ক, রেল ও নৌ-পথে সকল প্রকার গণপরিবহন চলাচল করতে পারবে;

১.২ পর্যটন কেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার ও বিনোদন কেন্দ্র আসন সংখ্যার শতকরা ৫০ ভাগ ব্যবহার করে চালু করতে পারবে,

১.৩ সকল ক্ষেত্রে মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করতে হবে এবং স্বাস্থ্য অধিদফতর কর্তৃক প্রণীত স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে; এবং

১.৪ যে কোন প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে অবহেলা পরিলক্ষিত হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দায়িত্ব বহন করবে এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

About

Popular Links