Saturday, May 18, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

তালেবানের সঙ্গে ক্ষমতা ভাগাভাগি করবে আফগান সরকার

এক সপ্তাহে আফগানিস্তানের ১০টি প্রাদেশিক রাজধানী দখল করে নিয়েছে তালেবান

আপডেট : ১২ আগস্ট ২০২১, ০৭:৪২ পিএম

চলমান হামলা, প্রাণহানি ও ধ্বংসযজ্ঞ বন্ধে সশস্ত্র গোষ্ঠী তালেবানকে ক্ষমতা ভাগাভাগির প্রস্তাব দিয়েছে আফগানিস্তানের ক্ষমতাসীন সরকার। দেশটির সরকারের একটি উচ্চপর্যায়ের সূত্রের বরাতে এ খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল জাজিরা।

বৃহস্পতিবার (১২ আগস্ট) একই ধরনের তথ্য জানায় আফগানিস্তানের একাধিক গণমাধ্যমও। উল্লেখ্য, গজনি দখলের মধ্য দিয়ে এক সপ্তাহে আফগানিস্তানের ১০টি প্রাদেশিক রাজধানী দখল করে নিয়েছে তালেবান। 

এর আগে সার-ই-পুল, সেবারঘান, আইবাক, কুন্দুজ, তালোকান, জারাঞ্জ, ফারাহ, পুল-ই-খুমরি এবং ফাইজাবাদ দখল করে নিয়েছিল তালেবানরা।

আল জাজিরাকে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কাতারের মাধ্যমে পরোক্ষভাবে তালেবানের কাছে এই প্রস্তাবটি উপস্থাপন করা হয়েছিল। কারণ এটি তালেবানদের রাজনৈতিক কার্যালয় এবং অব্যাহত আফগান শান্তি আলোচনার আয়োজন করে।

তবে কাবুলের রাষ্ট্রপতির বাসভবন থেকে এ ব্যাপারে কিছু নিশ্চিত করা হয়নি। সেখান থে বলা হয়েছে, কাতারের রাজধানী দোহায় শান্তি আলোচনা চলাকালীন পরিকল্পনায় কোন পরিবর্তন হয়নি।

জাতীয় পুনর্মিলন বিষয়ক উচ্চ পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আবদুল্লাহ যুক্তরাষ্ট্র, চীন, রাশিয়া এবং আফগানিস্তানের আঞ্চলিক প্রতিবেশীদের সঙ্গে দোহায় বৈঠক করছেন। বিদেশি কূটনীতিকদের সমাবেশে তিনি জানান, কাতার সরকারের কাছে  সরকারের শান্তি পরিকল্পনা জানানো হয়েছে। তবে তালেবানদের দেওয়া প্রস্তাবের কথা উল্লেখ করা হয়নি।

রাজধানী কাবুল থেকে ১৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে তালেবানরা দশম প্রাদেশিক রাজধানী গজনি দখলের পর পরস্পরবিরোধী প্রতিবেদন এসেছে।

গত মাসে তালেবান জানিয়েছিলো, আগস্টের মধ্যেই তারা তাদের শান্তি পরিকল্পনা প্রকাশ করবে। কিন্তু সশস্ত্র সংগঠনটি এখনও তা ঘোষণা করেনি।

আফগানিস্তানে মার্কিন চার্জ দি অয়াফেয়ার রস উইলসন দোহায় বলেছেন, "দোহায় তালেবানদের বিবৃতি বদখশান, গজনী, হেলমান্দ এবং কান্দাহারে তাদের কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ নয়। সহিংসতা, ভয় এবং যুদ্ধের মাধ্যমে একচেটিয়া ক্ষমতা দখলের প্রচেষ্টা শুধুমাত্র আন্তর্জাতিক বিচ্ছিন্নতার দিকে নিয়ে যাবে।"

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে বিগত ২০ বছর ধরে আফগানিস্তানে যুদ্ধ চলছিল। সেখান থেকে যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্যান্য দেশ সেনা প্রত্যাহার শুরু করার পর সেখানে আবার তীব্র লড়াই শুরু হয়। গত মে মাস থেকে আফগানিস্তানে নতুন উদ্যমে লড়াই শুরু করার পর সাম্প্রতিক সময়ে তালেবানরা খুব দ্রুত বিস্তীর্ণ এলাকা দখল করে।

About

Popular Links