Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

উখিয়ায় সুপারি বাগানে তরুণের লাশ, ‘পরিকল্পিত’ হত্যাকাণ্ডের অভিযোগ

পরিবারের দাবি, অভিযুক্তরা তাকে হত্যা করে বৈদ্যুতিক তারে পেঁচিয়ে মৃত্যু হয়েছে বলে প্রচার করে

আপডেট : ২৩ আগস্ট ২০২১, ০৩:৫১ পিএম

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার সোনাইছড়িতে রিদোয়ান হোসেন (২৪) নামে এক তরুণকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহত রিদোয়ানের বাড়ি ওই এলাকাতেই। 

শনিবার (২১ আগস্ট) রাতে উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের পশ্চিম সোনাইছড়ি গ্রামের একটি সুপারি বাগানে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

খবর পেয়ে রবিবার দুপুরে উখিয়া থানার আওতাধীন ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মৃতদেহটি উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্টের পর ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

নিহত রিদোয়ানের বাবা হোসেন আহমদের অভিযোগ, ‘‘পূর্বশক্রতার জের ধরে রাতের অন্ধকারে স্থানীয় ইউছুপ ওরফে পুতিয়া এবং ইউনুচ ওরফে বদাইয়া পরিকল্পিতভাবে পিটিয়ে হত্যার পর আমার ছেলেকে তাদের সুপারি বাগানে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে রাখে। পরে সকালে সেই বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে রিদোয়ান হোসেন মারা গেছে বলে অপপ্রচার চালিয়ে গা-ঢাকা দেয়। অনেকদিন আগে থেকে আমার পরিবারের সঙ্গে তাদের বিরোধ চলে আসছিল। ওই বিরোধের জের ধরে ছেলে রিদোয়ানকে হত্যা করা হয়েছে। আমি এই হত্যার সঠিক বিচার চাই।’’

এ বিষয়ে ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ও উপ-পরিদর্শক মো. অলিউর ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘‘খবর পেয়ে মৃতদেহটি উদ্ধার করা হয়েছে। মৃতদেহের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ঘটনা তদন্ত করে বিস্তারিত জানা যাবে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।’’

উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আহাম্মদ মঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, ‘‘বৈদ্যুতিক তারের জড়িয়ে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় এখনও কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’

একই কথা বলেছেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলামও। তিনি বলেন, ‘‘বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখা হচ্ছে। দোষীদের অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে।’’

এদিকে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় অনেকেই জানিয়েছেন, ওই এলাকার বাসিন্দা একাধিক মামলার আসামি ইউছুপ এবং ইউনুচ সুপারি বাগান রক্ষার নামে কভার তার ছাড়া চুরি করে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে ফাঁদ বসিয়ে দীর্ঘদিন ধরে শুকর শিকার করে আসছিল। রাতে রিদোয়ানকে পিটিয়ে হত্যার পর ওই পাতানো তারে ফেলে রাখা হয়। পরে সকালে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে মারা গেছে বলে অপপ্রচার চালায়। সকালে তারা ঘরে তালা ঝুলিয়ে দিয়ে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে পালিয়ে যায়। অভিযুক্তরা স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় টাকা দিয়ে হত্যা মামলাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্তদের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদেরকে পাওয়া যায়নি।

About

Popular Links