Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ইনোভেশন শোকেচিং প্রতিযোগিতায় ওজোপাডিকোর দ্বিতীয় স্থান অর্জন

ওজোপাডিকোর পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন সংস্থার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) রতন কুমার দেবনাথ ও নির্বাহী প্রকৌশলী দেবাশীষ পাল

আপডেট : ২৯ আগস্ট ২০২১, ০৮:৩২ পিএম

বিদ্যুৎ বিভাগ, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় আয়োজিত “ইনোভেশন শোকেচিং ২০২১” প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লি: (ওজোপাডিকো)। ইনোভেশন শোকেচিংয়ের বিষয়বস্তু ছিল “লো কস্ট সাবস্টেশন অটোমেশন সিস্টেম উইদ স্ক্যাডা”। 

প্রতিযোগিতা শেষে রবিবার (২৯ আগস্ট) সকাল ১০টায় রাজধানীতে পুরস্কার বিতরণ করেন বিদ্যুৎ বিভাগ, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. হাবিবুর রহমান। 

ওজোপাডিকোর পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন সংস্থার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) রতন কুমার দেবনাথ ও নির্বাহী প্রকৌশলী দেবাশীষ পাল। 

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) মোহা. সেলিম উদ্দিন, ওজোপাডিকো চেয়ারম্যান সেলিম আবেদ, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সমন্বয়), মোহাম্মদ হোসাইন, এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব (প্রশাসন-১) মো. আহসানুর রহমান হাসিব।

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ওজোপাডিকো জানায়, সংস্থাটির বিদ্যমান সবগুলো ৩৩/১১ কেভি উপকেন্দ্রের তথ্য (ভোল্টেজ, কারেন্ট, লোড ও অন্যান্য প্যারামিটার) এবং ফিডার চালু/বন্ধ হওয়ার রেকর্ড কর্মরত এসবিএরা ম্যানুয়েল লগ বইতে লিপিবদ্ধ করেন। এছাড়া ইনডোর ফিডারের সামনে থেকে চালু/বন্ধ করা হয় যা কর্মরত এসবিএ এর জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। ম্যানুয়েল লগ বইতে সংরক্ষিত তথ্যসমূহ ভবিষ্যতের পরিকল্পনা বিশ্লেষণধর্মী কাজে সহায়ক নয়। এছাড়াও কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে উপকেন্দ্রের সার্বিক অবস্থা সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করাও সম্ভব হয় না। বর্তমানে বিদ্যমান অটোমেশন সিস্টেমের কৌশলগত প্রযুক্তি বিদেশি আমদানি নির্ভর হওয়ায় তা অত্যন্ত ব্যয়বহুল এবং একই সঙ্গে রক্ষণাবেক্ষণ/পরিবর্ধন কাজের জন্য বিদেশি প্রকৌশলীর ওপর নির্ভরশীল হতে হতো। 

এসব সমস্যার সমাধান কল্পে “লো কস্ট সাবস্টেশন অটোমেশন সিস্টেম উইদ স্ক্যাডা” শিরোনামে ইনোভেশন আইডিয়া বাস্তবায়নের জন্য প্রাথমিকভাবে জোড়াগেট, খুলনা ৩৩/১১ কেভি উপকেন্দ্র নির্মাণ করা হয়।

About

Popular Links