Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ফাঁদ পেতে হত্যার পর মা হাতিটির পা-মাথা বিচ্ছিন্ন করল দুর্বৃত্তরা

রামুর কিছু দুর্বৃত্তের পেতে রাখা বৈদ্যুতিক ফাঁদে পড়ে হাতিটির মৃত্যু হয়। এরপর তারা শরীর থেকে হাতিটির মাথা ও পা বিচ্ছিন্ন করে ফেলে

আপডেট : ৩১ আগস্ট ২০২১, ০৬:৫৮ পিএম

কক্সবাজারের রামুতে লোকালয়ে চলে আসা একটি এশিয়ান মাদী হাতিকে বৈদ্যুতিক ফাঁদ পেতে হত্যার পর সেটির শরীর থেকে পা ও মাথা বিচ্ছিন্ন করে নিয়েছে দুর্বৃত্তরা। মৃত হাতিটিকে উদ্ধার করেছে বন বিভাগ। 

মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) সকালে উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের ধোয়াপালং এলাকা থেকে মৃত হাতিটিকে উদ্ধার করা হয়। এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে পুলিশ ৬০ বছর বয়সী একজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

ঢাকা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) প্রণয় চাকমা।


আরও পড়ুন- কক্সবাজারে বিদ্যুতায়িত হয়ে বন্যহাতির মৃত্যু


তিনি জানান, মঙ্গলবার ভোরে রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের ধোয়াপালং এলাকায় ধানক্ষেতে চলে আসে একটি মা হাতি। সেখানে স্থানীয়দের পেতে রাখা বৈদ্যুতিক ফাঁদে পড়ে প্রাণীটির মৃত্যু হয়। এরপর কয়েকজন দুর্বৃত্ত সেটির শরীর থেকে মাথা ও পা বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। তাদের ধরতে অভিযান চলছে। এ নৃশংস হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের কঠোর শাস্তির আওতায় আনা হবে।

কক্সবাজার বন বিভাগের দক্ষিণ বিভাগীয় কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির জানান, সোমবার ভোররাতে রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের ধোয়াপালং বনাঞ্চলের পাশে ধানক্ষেতে চলে আসে একটি মা বন্যহাতি। সেখানে স্থানীয় অধিবাসী নজির আহমদ ও তার ছেলেসহ  ১০ থেকে ১২ জন ব্যক্তি আগে থেকে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের ফাঁদ বসিয়ে রাখে। রাতে ওই ফাঁদে পড়ে বন্য মা হাতিটির মৃত্যু হয়। 


আরও পড়ুন- কক্সবাজারে পাহাড় থেকে পড়ে বন্য হাতির মৃত্যু


এরপর হাতিটি মাটিতে পুঁতে ফেলার জন্য শরীর থেকে মাথা ও পা বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। খবর পেয়ে বনবিভাগের সদস্যরা স্থানীয় পুলিশের সহযোগিতায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত নজির আহমদকে গ্রেপ্তার করে।

হিমছড়ি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মিজানুল ইসলাম বলেন, “খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে নজির আহমেদ নামে একজনকে আটক করি। বন বিভাগের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

About

Popular Links