Saturday, May 18, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

চট্টগ্রামে কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ৩

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী কিশোরীর বড় বোন বাদী হয়ে ডবলমুরিং থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করেছেন

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৪২ এএম

চট্টগ্রাম মহানগরী থেকে সীতাকুণ্ড এলাকায় নিয়ে গিয়ে এক কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগে তিন যুবককে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

এর আগে বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) অভিযান চালিয়ে সীতাকুণ্ড উপজেলার বেড়িবাঁধ এলাকা ও ডবলমুরিং উপজেলার মনসুরাবাদ থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

রাতে গণমাধ্যমকে এ ঘটনা জানান ডবলমুরিং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাসেম ভূঁইয়া।

গ্রেপ্তার তিনজন হলো- গাড়ি চালক মো. মেহেদী হাসান ওরফে মুন্না (১৯), মো. হাসান তারেক রনি (২৯), মো. মাকিব (২২)।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী কিশোরীর বড় বোন বাদী হয়ে ডবলমুরিং থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করেছেন।

পুলিশ জানায়, গত ৫ সেপ্টেম্বর ওই কিশোরী তার এক ভাবির সঙ্গে ডাক্তার দেখানোর জন্য বাসা থেকে বের হয়। পথে একটি লেগুনায় ভুক্তভোগী ও তার ভাবি ওঠার চেষ্টা করেন। কিন্তু অসর্তকতার কারণে ওই কিশোরী গাড়িতে উঠতে পারেনি। 

ওই কিশোরী আগ্রাবাদ সিএন্ডএফ টাওয়ারের সামনে কান্নাকাটি করতে থাকলে গাড়ি চালক মেহেদী তার কাছ থেকে ঘটনা জেনে তাকে বাসায় পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে গাড়িতে উঠায়। ওই কিশোরী মেহেদীর গাড়িতে উঠলে তাকে সীতাকুণ্ডের কালুশাহ মাজার এলাকার জঙ্গলে নিয়ে যায়। 

সেখানে একটি পরিত্যক্ত ঘরে আটকে রেখে মেহেদী ও তার দুই বন্ধু ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে। 

পরের দিন সকালে আসামি মেহেদী কিশোরীকে তার মনসুরাবাদের ঠিকানায় পৌঁছে দিয়ে ঘটনা কাউকে না জানানোর জন্য হুমকি ও ভয়ভীতি দেখায়। কিশোরী এই ঘটনা অনেকদিন পরিবারের কাছ থেকে গোপন রাখে।

ঘটনার কিছুদিন পর কিশোরীর শারীরিক অসুস্থতা দেখা দিলে পরিবারের সদস্যরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। এক পর্যায়ে সে তার সঙ্গে ঘটে যাওয়া নির্যাতনের বর্ণনা দেয়। 

বুধবার কিশোরীকে তার পরিবার ডাক্তার দেখিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মনসুরাবাদ এলাকায় পৌঁছালে ঘটনাচক্রে মূল অভিযুক্ত মেহেদীকে দেখতে পায়। পরে কিশোরীর বোন ও তার স্বজনরা মেহেদীকে আটক করে জাতীয় জরুরি সহায়তা নম্বর ৯৯৯-এ ফোন করেন। খবর পেয়ে ডবলমুরিং থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে গতকাল আরও দুই অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার আসামিরা ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

About

Popular Links