Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

এক মাসের মধ্যে কমবে ডেঙ্গুর প্রকোপ, আশা মন্ত্রীর

মন্ত্রী দাবি করেন, দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়া, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর এবং ফিলিপাইনের প্রাদুর্ভাবের মতো খারাপ নয়

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৩২ পিএম

সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করায় আগামী মাস থেকে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা কমবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় (এলজিআরডি) মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। এ সময় মন্ত্রী বলেন, দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়া, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর এবং ফিলিপাইনের প্রাদুর্ভাবের মতো খারাপ নয়।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে আয়োজিত বাংলাদেশ সচিবালয় রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ)-এর এক সংলাপে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, “কোভিড-১৯ বিধিনিষেধ এবং ঈদের ছুটির কারণে অনেক মানুষ দীর্ঘদিন ধরে ঢাকায় নেই। এই সময়ে, এডিস মশা খালি বাড়ি এবং নির্মাণাধীন ভবনের স্থির পানিতে বংশ বিস্তার করেছে, যার ফলে ডেঙ্গু প্রাদুর্ভাব ঘটেছে।”

এদিকে, দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ উদ্বেগজনকভাবে বেড়েই চলেছে। গত তিন সপ্তাহে ৫ হাজারেরও বেশি মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে। 

ডিজিএইচএস-এর তথ্য মতে, এ বছরের জুলাই মাসে সারাদেশে মোট ২ হাজার ২৮৬ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছিলেন, আগস্ট মাসে সেই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছিল ৭ হাজার ৬৯৮ এবং সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম ২০ দিনেই আক্রান্ত হয়েছেন ৫ হাজার ৪২৪ জন। 

মন্ত্রী বলেন, “ইতোমধ্যে অনেক শিশু ডেঙ্গুতে মারা গেছে এবং অনেক মানুষ স্বজন হারা হয়েছেন। আমরা আর কাউকে হারাতে চাই না। তাই এই বছরের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে পদক্ষেপ নেব আমরা।” 

অন্যদিকে, সেন্টার ফর গভর্নেন্স স্টাডিজ (সিজিএস) রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দাবি করেছে, রাজধানীতে প্রতিদিন ৬ হাজার থেকে ৭ হাজার নতুন ডেঙ্গু রিপোর্ট করা হচ্ছে। যদিও সেগুলো ডিজিএইচএস দ্বারা রেকর্ড করা হচ্ছে না কারণ সরকারি সংস্থায় শুধুমাত্র সেই ক্ষেত্রেই তথ্য রেকর্ড করা হয় যখন হাসপাতালে রোগী ভর্তি করা হয়।

সিজিএসের চেয়ারম্যান ও কীটতত্ত্ববিদ ড. মঞ্জুর আহমেদ চৌধুরী দাবি করেন, ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনই এডিস মশার প্রজনন নিয়ন্ত্রণে কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হয়েছে এবং সেই দোষ তারা জনগণের ওপর চাপিয়ে দিতে চাইছে।

About

Popular Links