Friday, June 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

খুলনা জেলা পরিষদে ঠিকাদারের ওপর হামলা

করোনাভাইরাস সুরক্ষা সামগ্রীর বিলের খবর নিতে গিয়ে খুলনায় জেলা পরিষদে হামলায় মফিজুল ইসলাম নামে এক ঠিকাদার আহত হয়েছেন

আপডেট : ০৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৪৪ পিএম

করোনাভাইরাস সুরক্ষা সামগ্রীর বিলের খবর নিতে গিয়ে খুলনা জেলা পরিষদে হামলায় মফিজুল ইসলাম নামে এক ঠিকাদার আহত হয়েছেন। তিনি বর্তমানে খুলনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

বুধবার (৬ অক্টোবর) দুপুর ১২টার দিকে জেলা পরিষদের অভ্যন্তরে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী মফিজুল ইসলাম জানান, করোনাকালীন সময়ে তিনি টেণ্ডার পেয়ে ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী (হ্যান্ডওয়াশ, স্যানিটাইজার ও মাস্ক) সরবরাহ করেন। ওই কাজের বিল এখনও পাননি তিনি। ওই বিলের বিষয়ে খবর নিতে বুধবার জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা এসএম মাহবুবুর রহমানের দফতরে যান তিনি। ঠিকাদার মোহাম্মদ আলীও তার সঙ্গে ছিলেন। এ সময় প্রশাসনিক কর্মকর্তার কক্ষে তার ঘনিষ্ঠ সহচর সুজন বসা ছিলেন।

মফিজুল ইসলাম বলেন, “বিলের বিষয়ে কথা শুরু করতেই প্রশাসনিক কর্মকর্তা এসএম মাহবুবুর রহমান ও তার ঘনিষ্ঠ সহচর সুজন ক্ষিপ্ত হন। অবস্থা বেগতিক দেখে আমরা কক্ষ থেকে বের হয়ে আসি। রুমের বাইরে আসলে সুজনও বাইরে আসে এবং চড় কিল ঘুষি ও লাথি মারতে থাকে। এ সময় সুজনের হাতে থাকা ভারি ধাতব বস্তু দিয়ে কপালে সজোরে আঘাত করে। এতে আমার কপাল ফেটে যায়। সেখানে চারটি সেলাই লেগেছে।”

ঠিকাদার মোহাম্মদ আলী বলেন, “সুজন জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মাহবুবের সঙ্গে ছায়ার মত লেগে থেকে এবং অবৈধ সুযোগ সুবিধা গ্রহণ করে। আমরা বিল নিয়ে কথা বলতে গেলে সে পাশ থেকে আমাদের ধমকাতে শুরু করে। পরিস্থিতি সামাল দিতে আমরা মাহবুবের রুম থেকে বের হলে রুমের সামনেই মারপিট করা হয়। আমরা মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছি।”

জেলা পরিষদের সচিব বিষ্ণুপদ পাল বলেন, “বিষয়টি শুনেছি। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আসলে আলোচনা করে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”

খুলনা জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা এস এম মাহবুবুর রহমান বলেন, “ঠিকাদাররা আলাদা আলাদাভাবে আসার পর সকলে একত্রিত হয়। এরপর তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে বিরোধের জের ধরে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। ওই ঘটনার সাথে জেলা পরিষদ সম্পৃক্ত নয়। আর করোনাকালীন যে টেন্ডারের কথা বলা হচ্ছে- তা মফিজ ঠিকাদার পাননি। পেয়েছেন অন্য ঠিকাদার। ওই টেন্ডার ইতিপূর্বেই বাতিল করা হয়েছে। টেণ্ডারটি নতুন করে আহ্বান করার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। বুধবার সৃষ্ট ঘটনাটি ঠিকাদারদের অভ্যন্তরীণ বিষয়। আমার ঘনিষ্ঠ হিসেবে যে সুজনের কথা বলা হচ্ছে সে আমার একান্ত কেউ নয়। সেও একজন ঠিকাদার।”

About

Popular Links