Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

শীতলক্ষ্যায় ট্রলারডুবি: চোখের সামনেই শিশু সন্তানকে নিয়ে ডুবে গেলেন মা

বুধবার নারায়ণগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীতে লঞ্চের ধাক্কায় যাত্রীবাহী ট্রলারডুবির ঘটনায় একই পরিবারের ৪ জনসহ ১০ জন নিখোঁজ রয়েছেন

আপডেট : ০৬ জানুয়ারি ২০২২, ১২:১৯ এএম

“চোখের সামনেই শিশুসহ এক নারীকে ডুবে যেতে দেখি৷ কিন্তু বাঁচাতে পারিনি। ভাবলেই বুকের মধ্যে কেমন যেন লাগছে।”

এভাবেই জীবনের ভয়াবহ মুহূর্তটির বর্ণনা দিচ্ছিলেন বুধবার (৫ জানুয়ারি) “এম.ভি ফারহান-৬” লঞ্চের ধাক্কায় ট্রলারডুবির ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী আলী আজগর।

এম. ভি ফারহান-৬ লঞ্চে করে রাজধানীর সদরঘাটে যাচ্ছিলেন আজগর। 

তিনি জানান, ভোর ৫টায় ভোলার চরফ্যাশন থেকে লঞ্চটি যাত্রা শুরু করে। লঞ্চ ছাড়ার প্রায় আধঘণ্টা পর লঞ্চের একটি ইঞ্জিন নষ্ট হয়ে যায়। এ সময় লঞ্চের অনেক যাত্রীই নিকটবর্তী ঘাটে নেমে যেতে চাইলেও লঞ্চটি তাদের না নামিয়ে চলতে থাকে।

তিনি বলেন, “সকাল সাড়ে ৮টার দিকে হঠাৎ বিকট শব্দ শুনতে পাই। দৌড়ে ডেকের কাছে গিয়ে দেখি একটি ট্রলার উল্টে গেছে। ট্রলারের যাত্রীরা বাঁচার জন্য আর্তনাদ করছে। এ সময় বোরকা পরা এক নারীকে দেখি, দুই থেকে আড়াই বছরের একটি শিশুকে নিয়ে পানিতে ডুবে যাচ্ছেন। তিনি সমানে চিৎকার করছিলেন। শিশুটিও হাত দিয়ে ডাকছে। কিন্তু কিছুই করতে পারিনি।”

আলী আজগর আফসোস করে জানান, চাইলেই লঞ্চ থামিয়ে ডুবন্ত যাত্রীদের সাহায্য করা যেতো।

তিনি আরও বলেন, “লঞ্চের স্টাফদের অনেকবার বলার পরও কেউ যখন কথা শুনলো না, তখন আমি কাউকে কিছু না বলে ৯৯৯-এ ফোন করি।”

আলী আজগর বলেন, “এই বীভৎস স্মৃতি আমাকে সারা জীবন তাড়া করবে। শিশুটির মুখ বারবার মনে পড়ছে। ওই মা তার সন্তানকে বাঁচানোর জন্য বোরকার মধ্যে জড়িয়ে রাখার চেষ্টা করছিল।”

বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় নারায়ণগঞ্জের সিপাহীপাড়া থেকে ফতুল্লার ধর্মগঞ্জ গুদারাঘাট এলাকার যাওয়ার পথে ধলেশ্বরী নদীতে এমভি ফারহান-৬ নামে একটি লঞ্চের ধাক্কায় যাত্রীবাহী ট্রলারডুবির ঘটনায় একই পরিবারের চারজনসহ ১০ জন নিখোঁজ রয়েছেন।

ফতুল্লা ফায়ার সার্ভিস এবং কোস্টগার্ডসহ চারটি টিম ঘটনাস্থলে উদ্ধার অভিযানে নেমেছে। ঘটনার সাড়ে ১১ ঘণ্টা পরেও নিখোঁজ কাউকে উদ্ধার করতে পারেনি অভিযান পরিচালনাকারী দলগুলো।

এদিকে, দুপুরে বরিশাল থেকে অভিযুক্ত লঞ্চের মাস্টারসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে নৌ পুলিশ। 

বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক ঢাকা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি জানান, লঞ্চের  মাস্টারকে আটক করা হয়েছে। আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এছাড়া ঘাটের দুই পাশের ইজারাদারদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

About

Popular Links