Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পরিবহন ধর্মঘটের প্রভাব সড়ক থেকে বাজারে

‘বাজারে পর্যাপ্ত সবজি আছে, কিন্তু ধর্মঘটের কারণে সামান্য দাম বেড়েছে’

আপডেট : ২৯ অক্টোবর ২০১৮, ০২:২৭ পিএম

আট দফা দাবি আদায়ে পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা ৪৮ ঘণ্টার ধর্মঘটের প্রভাব পড়েছে বাজারেও। শ্রমিকরা স্থানীয় রুটগুলোতে চলাচলকারী হালকা যানবাহন চলাচলে বাঁধা সৃষ্টি করছে। আর দুরপাল্লার বাস চলাচলও বন্ধ রয়েছে। এরই মধ্যে সব ধরনের সবজির দাম ৩ থেকে ৫ টাকা পর্যন্ত বেড়ে গেছে। 

খুলনা বিভাগের সর্বত্রই এ অবস্থা বিরাজ করছে। গণপরিবহন চলাচল করতে না পারার কারণে নারী ও বৃদ্ধরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। মুমূর্ষু রোগীবহনকারী এ্যাম্বুলেন্সও আটকে নাজেহাল করার ঘটনা ঘটছে।

খুলনা মহানগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ফুলকপি ৫৫-৬০ টাকা, শীতকালিন শিম ৮০ টাকা, বরবটি ৮০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ২৮-৩০ টাকা, পটল ২৫-৩০ টাকা, পেঁপে ১৫-২০ টাকা, বেগুন ৪০-৫০ টাকা, ঢ়েঁড়স ৪০ টাকা, আলু ২৫-২৮ টাকা, কাঁচা মরিচ ৬০ টাকা, দেশী পেঁয়াজ ৪০-৫০ টাকা, ভারতীয় পেঁয়াজ ২৫-৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছিল ২৭ অক্টোবরও। 

অথচ পরিবহন ধর্মঘটের কারণে রবিবার রাত ও সোমবার সকাল থেকে ফুলকপি ৬০-৬৫ টাকা, শীতকালীন শিম ৯০-১০০ টাকা, বরবটি ৮৫-৯০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৩০-৩২ টাকা, পটল ৩২-৩৫ টাকা, পেঁপে ২০-২২ টাকা, বেগুন ৫৫-৫৫ টাকা, ঢ়েঁড়স ৪৫-৪৮ টাকা, আলু ২৮-৩০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৬৫-৭০ টাকা, দেশী পেঁয়াজ ৫০-৫৫ টাকা, ভারতীয় পেঁয়াজ ৩০-৩২ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

এ বিষয়ে সবজি ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম বলেন, “বাজারে পর্যাপ্ত সবজি আছে। কিন্তু ধর্মঘটের কারণে সামান্য দাম বেড়েছে। ধর্মঘট শেষ হলে সবজির দাম আবার কমবে।”

অন্যদিকে সবজি ব্যবসায়ী ইমাম হোসেন বলেন, “সোনাডাঙ্গা ট্রাক টার্মিনাল পাইকারী কাঁচা বাজারে সবজির দাম কিছুটা বেড়েছে। ধর্মঘটের কারণে পাইকাররা দাম বাড়িয়েছে। ফলে খুচড়া দামও বাড়াতে হয়েছে।” 

এদিকে পরিবহন চালক ও শ্রমিকরা বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে থামিয়ে দিচ্ছেন অটোরিকশাসহ অন্যান্য সব যানবাহন। খুলনা থেকে বাগেরহাট, মোংলা, শরণখোলা, মোড়েলগঞ্জ, কচুয়া, সাইনবোর্ড, রামপাল, চিতলমারী, ফকিরহাট, মোল্লাহাট, ডুমুরিয়া, পাইকগাছা, তালা, কপিলমুনি, কয়রা, চুকনগর, সাতক্ষীরা, ফুলতলা, নওয়াপাড়া, যশোরসহ স্থানীয় সব রুটে কোনও ধরনের পরিবহন চলাচল করছে না।

এ প্রসঙ্গে খুলনা বাস-মিনিবাস কোচ মালিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বলেন, “কেন্দ্রীয়ভাবে ডাকা এ পরিবহন ধর্মঘট নিয়ে সিদ্ধান্তও কেন্দ্রীয়ভাবেই হবে। আমরা কেবল কেন্দ্রীয় ঘোষণা সফল করতে তৎপর আছি।”

অন্যদিকে নিরাপদ সড়ক চাই’-এর (নিসচা) খুলনা জেলা সাধারণ সম্পাদক এস এম ইকবাল হোসেন চলমান ধর্মঘট প্রসঙ্গে বলেন, “চলমান ধর্মঘট সম্পূর্ণ অনৈতিক। পরিবহন ধর্মঘটের নামে জনগণকে জিম্মি করা হচ্ছে।”


About

Popular Links