Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সিলেট নগরীতে পানির বিল কমলো

আবাসিক সংযোগে প্রতি মাসে আধা ইঞ্চি ডায়ামিটারের (ব্যাস) লাইনে বিল ৩০০ টাকা, পৌনে এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে বিল ৬০০ টাকা এবং এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে ১২০০ টাকা

আপডেট : ১২ জানুয়ারি ২০২২, ০৯:০২ পিএম

নগরবাসীর আন্দোলনের মুখে চার মাস পর পানির বিল কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক)। তিন ক্যাটাগরিতে চার স্তরের ডায়ামিটারে ১০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত কমানো হয়েছে পানির বিল। 

বুধবার (১২ জানুয়ারি) সিসিক পরিষদের এক বৈঠকে নতুন বিলের প্রস্তাব উত্থাপিত হয়। মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সম্মতিতে পরে সেটি চূড়ান্তও করা হয়।

সিসিকের নতুন বিলের হার হচ্ছে- আবাসিক সংযোগে প্রতি মাসে আধা ইঞ্চি ডায়ামিটারের (ব্যাস) লাইনে বিল ৩০০ টাকা (বাড়িয়ে করা হয়েছিল ৫০০ টাকা), পৌনে এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে বিল ৬০০ টাকা (ছিল ৮০০ টাকা) এবং এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে ১২০০ টাকা (ছিল ১ হাজার ৫শ টাকা টাকা)।

বাণিজ্যিক সংযোগে আধা ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে মাসিক বিল ৭০০ টাকা (বাড়িয়ে করা হয়েছিল ৮০০ টাকা), পৌনে এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে ১১০০ টাকা (ছিল ১২০০ টাকা) ও এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে বাণিজ্যিক গ্রাহকদের ক্ষেত্রে মাসিক বিল ২০০০ টাকা (ছিল ২২০০ টাকা)।

প্রাতিষ্ঠানিক সংযোগে আধা ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে মাসিক বিল ৭০০ টাকা (বাড়িয়ে করা হয়েছিল ৮০০ টাকা), পৌনে এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে ১১০০ টাকা (ছিল ১২০০ টাকা) ও এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে বাণিজ্যিক গ্রাহকদের ক্ষেত্রে মাসিক বিল ২৫০০ টাকা (ছিল ৩০০০ টাকা।)

এছাড়া, সরকারি সংযোগে আধা ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে মাসিক বিল ৭০০ টাকা (বাড়িয়ে করা হয়েছিল ৮০০ টাকা), পৌনে এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে ১১০০ টাকা (ছিল ১২০০ টাকা) ও এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনের ক্ষেত্রে মাসিক বিল ১ হাজার ২০০ টাকা (ছিল ১ হাজার ৫০০ টাকা)।

বুধবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বনে, সিলেট মহানগরের নাগরিকদের দাবি ও সুবিধা বিবেচনায় পুনরায় পানি বিল নির্ধারণ করা হয়েছে। যারা অবৈধভাবে পানির সংযোগ নিয়েছেন তারা আগামী ৩০ জানুয়ারির মধ্যে প্রয়োজনীয় অনুমোদন করিয়ে নিতে পারবেন। অন্যথায় সিসিকের অভিযানে সব অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে। 

মেয়র জানান, ধর্মীয় উপাসনালয় যেমন, মসজিদ, মন্দির, গির্জা, প্যাগোডার পানির বিল মওকুফ করা হয়েছে। ভবিষ্যতে পানির বিলের জন্য সিসিক ডিজিটাল মিটার বসাবে।

এছাড়া, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বাসার পানি বিল আগে থেকেই মওকুফ করা আছে বলেও জানান তিনি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর আজম খান, কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ, কাউন্সিলর সালেহ আহমদ সেলিম, কাউন্সিলর আফতাব হোসেন খান, কাউন্সিলর আব্দুল মুহিত জাবেদ, কাউন্সিলর এসএম শতকত আমীন তৌহিদ, সংরক্ষিত কাউন্সিলর শাহানা বেগম শানু প্রমুখ।


About

Popular Links