Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কোভিড টিকার জন্য ‘এসি কিনতে’ শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ফি আদায়

পাবনার বেড়া উপজেলার ঢালারচর উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে টিকা নিতে আসা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে কোভিড টিকা দেওয়ার জন্য ‘এয়ার কন্ডিশনার কেনা বাবদ’ ফি নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে

আপডেট : ১৬ জানুয়ারি ২০২২, ১১:৩২ পিএম

পাবনার বেড়া উপজেলার ঢালারচর উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে টিকা নিতে আসা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে কোভিড টিকা দেওয়ার জন্য “এয়ার কন্ডিশনার কেনা বাবদ” ফি নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেক অভিভাবক।

রবিবার (১৬ জানুয়ারি) এ তথ্য জানিয়েছেন বেড়া উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা খবির উদ্দিন। বিডি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ঢালারচর উচ্চবিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থীর অভিভাবক বলেন, “সারা দেশে সরকার বিনামূল্যে করোনাভাইরাসের টিকা দিচ্ছে। কিন্তু ঢালারচর উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ৬০ থেকে ১০০ টাকা করে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নিচ্ছেন। কেউ প্রতিবাদ করলে ভয় দেখিয়ে শিক্ষকরা টাকা নিয়ে টিকা দেন।”

শিক্ষার্থীরা বলেন, “আমরা বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ করলে স্যারেরা ভয়ভীতি দেখান। পরে বাধ্য হয়ে টাকা দিয়ে টিকা নেই।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢালারচর উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রশিদ বলেন, “আমাদের বিদ্যালয়ে প্রায় এক হাজার ১০০ শিক্ষার্থী রয়েছে। তাদেরকে টিকা নিতে যেতে হবে কাশিনাথপুর বা বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। এতে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কমপক্ষে ৩০০ টাকা করে খরচ হবে। এছাড়াও যাতায়াতের ঝক্কি তো আছেই।”

তিনি আরও বলেন, “তাই বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি ও স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকেও অবহিত করা হয়েছে।”

প্রধান শিক্ষক বলেন, “টিকা কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য এসি কিনতে ১ লাখ ১২ হাজার টাকা খরচ হবে। এর মধ্যে ২৫ হাজার টাকা ইতোমধ্যে পরিশোধ করা হয়েছে। বাকি টাকা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নিয়ে পরিশোধ করা হবে।”

বেড়া উপজেলার শিক্ষ কর্মকর্তা খবির উদ্দিন এ বিষয়ে বলেন, “টাকা আদায়ের বিষয়টি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আমাকে জানিয়েছে।” তবে এটি টিকা ফি নয় বলেও দাবি করেন তিনি।

বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ফাতেমাতুজ জান্নাত বলেন, “ফাইজারের টিকা এসি রুমে দেওয়ার নিয়ম আছে। তবে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কেন টাকা নিচ্ছে তা আমার জানা নেই।”

এ বিষয়ে পাবনা জেলা প্রশাসক বিশ্বাস রাসেল হোসেন বলেন, “এমন অভিযোগ পাইনি। পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

About

Popular Links