Friday, May 31, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ঢাবিতে এক হাজার আসন কমতে পারে

সুপারিশ বাস্তবায়ন হলে সর্বোপরি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার আসন ৭১২৫ থেকে ৬১১০-এ নেমে আসবে

আপডেট : ২১ জানুয়ারি ২০২২, ১১:১৯ এএম

২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ১০১৫টি আসন কমানোর সুপারিশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতি নির্ধারণী ডিন'স কমিটি। সুপারিশ বাস্তবায়িত হলে প্রতি ১৬ জন শিক্ষার্থীর বিপরীতে থাকবেন একজন শিক্ষক।

ঢাবি ডিন'স কমিটির প্রস্তাবিত প্রতিবেদনের বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে অনলাইন গণমাধ্যম বাংলা ট্রিবিউন।

প্রস্তাবিত প্রতিবেদনে সবচেয়ে বেশি আসন কমানোর সুপারিশ করা হয়েছে কলা অনুষদে। এতে ১৭টি বিভাগে কমবে ৫১৫টি আসন। বর্তমানে এ অনুষদে ১৮৭৫টি আসন রয়েছে। সুপারিশ বাস্তবায়ন হলে তা কমে ১৩৬০-এ নেমে আসবে। এছাড়া ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদে ২০০টি, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদে ১৫৭টি, জীববিজ্ঞান অনুষদে ৯০টি, আর্থ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স অনুষদে ১০টি, আইন অনুষদে ২০টি, চারুকলা অনুষদে ৫টি, ইনস্টিটিউটগুলোতে ৪০টি আসন কমানোর সুপারিশ করা হয়েছে। 

এছাড়া কিছু বিভাগে আসন সংখ্যা বাড়ানোর সুপারিশ করা হয়েছে।

এই সুপারিশ বাস্তবায়ন হলে সর্বোপরি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার আসন ৭১২৫ থেকে ৬১১০-এ নেমে আসবে।

আসন কমছে যেসব বিভাগে

ডিনস কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী কলা অনুষদের বাংলা বিভাগে ১২টি, ইংরেজিতে ৩০টি, আরবিতে ৫০টি, ফারসি ভাষা ও সাহিত্যে ২৫টি, উর্দুতে ৪০টি, সংস্কৃততে ৪০টি, পালি ও বুদ্ধিস্ট স্টাডিজে ২৫টি, ইতিহাসে ২০টি, দর্শনে ৫০টি, ইসলামিক স্টাডিজে ৮৫টি, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতিতে ৫০টি, তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনায় ১০টি, ভাষা বিজ্ঞানে ২০টি, সংগীতে ২০টি, বিশ্বধর্ম ও সংস্কৃতিতে ৪০টি এবং নৃত্যকলা বিভাগে ৫টি আসন কমবে।

ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদে ম্যানেজমেন্ট বিভাগে ৩০টি, অ্যাকাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমসে ৩০টি, মার্কেটিংয়ে ৩০টি, ফিন্যান্সে ৩০টি, ব্যাংকিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমসে ৫০টি, ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেমসে ১৫টি, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেসে ১৫টি, ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্টে ১৫টি আসন কমছে।

সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে ৫০টি, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে ২০টি, সমাজ বিজ্ঞানে ৩৫টি, গণযোগাযোগ সাংবাদিকতায় ৬টি, লোক প্রশাসনে ২০টি, শান্তি ও সংঘর্ষ অধ্যয়নে ২০টি, উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজে ৫টি, ক্রিমিনোলজিতে ১০টি, কমিউনিকেশন ডিজঅর্ডারসে ১০টি, জাপানিজ স্টাডিজে ১০টি আসন কমবে।

জীববিজ্ঞান অনুষদে মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশে ২০টি, উদ্ভিদ বিজ্ঞানে ৫টি, প্রাণিবিদ্যায় ২০টি, মনোবিজ্ঞানে ৫০টি আসন কমবে। এছাড়া আর্থ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সস অনুষদের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে ৪০টি; আইন অনুষদের আইন বিভাগে ২০টি; চারুকলা অনুষদের অংকন ও চিত্রায়নে ৫টি; শিক্ষা ও গবেষণা ইনিস্টিটিউটে ৪০টি, সমাজকল্যাণ ও গবেষণায় ৫টি, আধুনিক ভাষা ইনিস্টিটিউটে ২০টি আসন কমবে।

আসন বাড়বে যেসব বিভাগে

কলা অনুষদের থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগে ৭টি; বিজনেস অনুষদে অর্গানাইজেশন স্ট্র্যাটেজি অ্যান্ড লিডারশিপ বিভাগে ১৫টি; সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অর্থনীতিতে ২টি, পপুলেশন সাইন্সেসে ১৫টি, ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজে ১২টি; জীববিজ্ঞান অনুষদে জীন প্রকৌশল ও জীব প্রযুক্তি বিভাগে ৫টি; আর্থ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সস অনুষদের সমুদ্র বিজ্ঞানে ১৫টি, দুর্যোগ বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনায় ১০টি, আবহাওয়ায় ৫টি; বিজ্ঞান অনুষদের পরিসংখ্যান বিভাগে ২টি; ফার্মেসি অনুষদের ফার্মেসি বিভাগে ১০টি, পুষ্টি ও খাদ্য বিজ্ঞান ইনিস্টিটিউটে ৫টি, তথ্য প্রযুক্তিতে ২০টি, নিউক্লিয়ার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ৫টি, রোবটিক্স অ্যান্ড মেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ৫টি আসন বাড়বে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অধ্যাপক ড. মাকসুদ কামাল বলেন, শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি ও দক্ষ মানব সম্পদ তৈরির লক্ষ্যে আসন পুনর্নির্ধারণের বিষয়ে ভাবছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক চাহিদা আলোকে কিছু বিভাগে আসন কমানো হয়েছে এবং কিছু বিভাগে বাড়ানো হয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা আন্তর্জাতিকভাবে লক্ষ্য করেছি যে, পৃথিবীর মানসম্মত যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আছে, সেখানে ১০ জন শিক্ষার্থীর জন্য একজন শিক্ষক।  কোনও কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫ জন শিক্ষার্থীর জন্য একজন শিক্ষক রয়েছেন। কিন্তু আমাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন ২০ জনের অধিক শিক্ষার্থীর জন্য একজন শিক্ষকের ব্যবস্থা রয়েছে। সেটি এখন আমরা ১৬-তে নিয়ে আসব। সেই আলোকে আসন কমানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ডিন'স কমিটির এই সুপারিশ পরবর্তী একাডেমিক কাউন্সিলে ওঠার পর সিন্ডিকেটে মিটিংয়ে চূড়ান্ত করা হবে বলে তিনি জানান।

About

Popular Links