Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

অনশন ভাঙতে রাজি আন্দোলনরত শাবি শিক্ষার্থীরা

সাবেক শিক্ষার্থী গেপ্তারের প্রতিবাদে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তা দেন ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল

আপডেট : ২৬ জানুয়ারি ২০২২, ১০:১৮ এএম

সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা তাদের আমরণ অনশন ভাঙতে রাজি হয়েছেন। শাবির সাবেক অধ্যাপক ও জনপ্রিয় লেখক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের কাছে তারা বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সকালে অনশন ভাঙার আশ্বাস দিয়েছেন। সংবাদপত্র প্রথম আলোর অনলাইন সংস্করণ এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৪টার দিকে শাবি ক্যাম্পাসে গিয়ে অনশনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল । এ সময় তার স্ত্রী ইয়াসমিন হকও সঙ্গে ছিলেন।

এ বিষয়ে অনশনকারী শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ আল রাফি বলেন, “স্যার বলেছেন, তাকে আশ্বাস দিয়ে পাঠানো হয়েছে। উপাচার্যের জন্য অনশন করে নিজের ক্ষতি করা ঠিক না। তাই আমাদের অনশন ভাঙার অনুরোধ ও আহ্বান জানান তিনি। তবে আমাদের আন্দোলন চলমান থাকবে।”

আব্দুল্লাহ আল রাফি আরও বলেন, ‘আমরা যেন নিজেদের ক্ষতি না করি এবং যারা অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে আছেন, যাদের অবস্থা খুব সংকটাপন্ন, সব বিষয় বিবেচনা করে আমরা যাতে অনশন ভেঙে ফেলি, সেই আহ্বান তিনি জানিয়েছেন। পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, স্যারের ওপর বিশ্বাস রেখে, সবাই মিলে অনশন ভেঙে ফেলি।”

জানা গেছে, ক্যাম্পাসে প্রায় দুই ঘণ্টা ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল অনশনকারীদের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি অনশনকারীদের শারীরিক অবস্থার খোঁজ-খবর নেন। এ সময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা আন্দোলনের বিষয়ে তাকে বিস্তারিত জানান।

ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, “শিক্ষার্থীদের ওপর এমন হামলার ঘটনাটি খুবই নিন্দনীয়। এখানে শিক্ষার্থীরা সবাই বাইরে থেকে শীতে কষ্ট করছে। শিক্ষার্থীদের শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ কিন্তু তাদের জন্য কোনো মেডিকেল টিম নেই। যারা তাদের আর্থিক সহায়তা প্রদান করতো তাদেরও গ্রেফতার করা হয়েছে। যা খুবই নিন্দনীয় একটি কাজ।”

শিক্ষার্থীদের সব অভিযোগ ও দাবি শোনার পর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, “তোমরা আমাকে গণমাধ্যমের সামনে কথা দিয়েছ, এই অনশন ভাঙবে। তোমাদের জীবন অনেক মূল্যবান। একজন মানুষের জন্য তোমরা জীবন দিয়ে দিবা এটা মানা যায় না। সাবেক ৫ শিক্ষার্থীর বিষয়ে কথা হয়েছে। যেহেতু মামলা করা হয়ে গেছে, আদালতে তোলা হবে। তারা কথা দিয়েছেন ছাত্রদের জামিন দেওয়া হবে।”


আরও পড়ুন: শাবির ৫ সাবেক ছাত্রকে সিলেট পুলিশের কাছে হস্তান্তর


সাবেক শিক্ষার্থী গেপ্তারের প্রতিবাদে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তা দেন ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল। তিনি বলেন, ‘তোমাদেরকে সাহায্য করতে যদি অ্যারেস্ট হতে হয় তাহলে আমি হব। আমি তোমাদেরকে এই ১০ হাজার টাকা দিলাম। এ টাকা দিয়ে তোমাদের তেমন কিছু হবে না জানি। কিন্তু আমি দেখতে চাই সিআইডি আমাকে অ্যারেস্ট করে কি না।”

প্রসঙ্গত, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের আবাসিক হলের সমস্যা নিরসনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার ঘটনার পরদিন রবিবার (১৬ জানুয়ারি) দুপুর আড়াইটা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া আইআইসিটি ভবনে উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রাখেন শিক্ষার্থীরা। তারা প্রভোস্ট বডির পদত্যাগ ও হামলার বিচার দাবি করেন। 


আরও পড়ুন: শাবি শিক্ষকদের একাংশ: ‘নোংরা’ স্লোগান দিচ্ছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা


পরে বিকাল ৪টায় আইআইসিটি ভবনের সামনে উপাচার্যকে মুক্ত করতে পুলিশ উপস্থিত হয়। এ সময় “ক্যাম্পাসে পুলিশ কেন? প্রশাসন জবাব চাই” স্লোগানে ফেটে পড়েন শিক্ষার্থীরা। সন্ধ্যায় লাঠিপেটার পাশাপাশি, রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল ছুড়ে পুলিশ ছাত্রদের ছত্রভঙ্গ করে ভিসিকে উদ্ধার করে বাংলোতে পৌঁছে দেন। এতে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী আহত হন। এক শিক্ষার্থী গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।


আরও পড়ুন: শাবিতে শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের লাঠিচার্জ


পরে রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদ অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করেন। একই সঙ্গে সোমবার (১৭ জানুয়ারি) ১২টার মধ্যে সব শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেন। তবে শিক্ষার্থীরা হল না ছেড়ে ক্যাম্পাসে অবস্থান নিয়ে ভিসির পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন।


আরও পড়ুন: শাবিতে এবার কাফনের কাপড় পরে মিছিল



About

Popular Links