Monday, June 17, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

অনশন ভাঙলেন শাবি শিক্ষার্থীরা

বুধবার সকাল ১০টা ২৫ মিনিটের দিকে ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল ও তার স্ত্রী ইয়াসমিন হক পানি পান করিয়ে শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙান

আপডেট : ০৯ মার্চ ২০২২, ১২:২৬ পিএম

সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা তাদের আমরণ অনশন ভেঙেছেন।

বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সকাল ১০টা ২৫ মিনিটের দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক অধ্যাপক ও জনপ্রিয় লেখক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল ও তার স্ত্রী অধ্যাপক ইয়াসমিন হক পানি পান করিয়ে শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙান।

এর আগে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৪টার দিকে শাবি ক্যাম্পাসে গিয়ে অনশনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল । এ সময় তার স্ত্রী ইয়াসমিন হকও সঙ্গে ছিলেন।

তিনি শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙার অনুরোধ করেন। জবাবে অনশনকারী সব শিক্ষার্থী বুধবার সকালে এক সঙ্গে অনশন ভাঙার আশ্বাস দেন।

শিক্ষার্থীদের আশ্বাসে বুধবার সকাল ৮টায় ফের ড. জাফর ইকবাল এবং তার স্ত্রী ড. ইয়াসমিন হক ক্যাম্পাসে আসেন। এরপর হাসপাতালে থাকা শিক্ষার্থীদেরকে অনশনস্থলে আনা হলে ড. জাফর ইকবাল তাদেরকে পানি পার করান।


আরও পড়ুন: জাফর ইকবাল: উচ্চপর্যায় থেকে শাবি শিক্ষার্থীদের দাবি পূরণের আশ্বাস পেয়েছি


মঙ্গলবার রাতে আন্দোলনত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলার সময় ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল জানান, সরকারের উচ্চপর্যায়ে তার আলোচনা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে দাবি পূরণের প্রতিশ্রুতি পেয়েছেন। এ কারণেই তিনি ক্যাম্পাসে ছুটে এসেছেন। অনশন না ভাঙিয়ে তিনি ফিরে যাবেন না।সাবেক শিক্ষার্থী গেপ্তারের প্রতিবাদে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তা দেন ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল। তিনি বলেন, ‘তোমাদেরকে সাহায্য করতে যদি অ্যারেস্ট হতে হয় তাহলে আমি হব। আমি তোমাদেরকে এই ১০ হাজার টাকা দিলাম। এ টাকা দিয়ে তোমাদের তেমন কিছু হবে না জানি। কিন্তু আমি দেখতে চাই সিআইডি আমাকে অ্যারেস্ট করে কি না।”

তিনি বলেন, “আন্দোলনের সহায়তা করা কোন অপরাধ নয়। সাবেক শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে সহায়তা করতেই পারে।”

এ সময় তিনি বলেন, “বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকীর একটা স্মারকগ্রন্থে আমার কাছে একটা লেখা চেয়েছিল। সেই লেখাটার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে আমাকে দশ হাজার টাকা সম্মানী দেওয়া হয়েছে। আমি এই সম্মানীর টাকাটা নিয়ে আসছি, এই আন্দোলনের ফান্ডে এই টাকাটা দিচ্ছি, তোমরা রাখো।”

তিনি বলেন, “ঢাকা থেকে আসার আগে একজন আমাকে বলেছিলেন শাবিতে বহিরাগতদের প্রবেশ নিষেধ। আমিও এই বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন বহিরাগত, আমি আমার শিক্ষার্থীদের কাছে এসেছি। এবার আমাকে অ্যারেস্ট করুক।

উল্লেখ্য, শিক্ষার্থী আন্দোলনের খরচ নির্বাহের জন্যে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার অভিযোগে ঢাকা থেকে পাঁচ প্রাক্তন শিক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশের বিশেষ দল। তাদেরকে মঙ্গলবার সিলেটে আনা হয়েছে। এরপর নগরের জালালাবাদ থানায় তাদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধি আইনে মামলা হয়েছে। 


আরও পড়ুন: শাবির ৫ সাবেক ছাত্রকে সিলেট পুলিশের কাছে হস্তান্তর



About

Popular Links