Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সিলেটে বিরল প্রজাতির ‘গন্ধগোকুল’ উদ্ধার

রবিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) টুকেরকান্দি গ্রামের জঙ্গল থেকে এটি উদ্ধার করা হয়

আপডেট : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১০:৫৯ এএম

সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় বিরল প্রজাতির বন্যপ্রাণী গন্ধগোকুল উদ্ধার করা হয়েছে। 

রবিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) টুকেরকান্দি গ্রামের জঙ্গল থেকে এটি উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধারের পর উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে যোগাযোগ করা হলে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সেখানে যান।

টুকেরকান্দি গ্রামের তোয়াব আলী বলেন, আমাদের বাড়ির পাশের জঙ্গল থেকে বন্যপ্রাণী গন্ধগোকুলকে আটক করেছি।

তিনি বলেন, প্রাণিসম্পদ অফিসে যোগাযোগ করলে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এসে গন্ধগোকুলটি নিয়ে যায়।

কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আশরাফুল আলম ইমন বলেন, “আমরা প্রাণীটিকে চিকিৎসা দিয়ে বন বিভাগে হস্তান্তর করব।”

বাংলাদেশ বন বিভাগের বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা জোহরা মিলা জানান, নিশাচর এই প্রাণীটি লোকালয়ের কাছাকাছি ঝোপ-জঙ্গলে বাস করে। এরা তাল-খেজুর রস, ফল, সবজি ছাড়াও কৃষির জন্য ক্ষতিকর পোকামাড়র ও ইঁদুর খেয়ে কৃষকের উপকার করে। মজার বিষয় হলো, বট বা অন্যান্য গাছের ফল খাওয়ায় এদের মলের সঙ্গে নির্গত বীজগুলোর শতভাগ অঙ্কুরোদগম হয়, যা উদ্ভকূল রক্ষায় দারুণ কার্যকরী। 

জোহরা মিলা বলেন, আপনি বনজঙ্গল বা ঝোপ-ঝাড়ের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় যদি পোলাওয়ের চালের মতো গন্ধ পান তবে বুঝে নেবেন আপনার আশেপাশেই গন্ধগোকুল আছে।

তিনি বলেন, “বনজঙ্গল ধ্বংস, খাদ্যের অভাব, পিটিয়ে হত্যা ইত্যাদি কারণে প্রকৃতির উপকারী এই প্রাণীটির অস্তিত্ব হুমকির মুখে পড়েছে। বিভিন্ন লোকজ ওষুধ ও টোটকা তৈরিতে গন্ধগোকুল হত্যা করা হয়। কিন্তু এসব ওষুধের কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। বরং কিছু অসাধু ব্যক্তি দেশের সরল মানুষকে ঠকাচ্ছে। এক সময় দেশে প্রচুর গন্ধগোকুলের দেখা মিললেও বর্তমান পরিস্থিতি এতটাই খারাপ হয়েছে যে, আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘের (আইইউসিএন) বিবেচনায় এটি পৃথিবীর বিপন্ন প্রাণীর তালিকায় উঠে এসেছে। বাংলাদেশের ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনের তফসিল-১ অনুযায়ী এ প্রাণীটি সংরক্ষিত। তাই এটি হত্যা বা কোনো ক্ষতি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।”

About

Popular Links