Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সাজাভোগ করে মিয়ানমার থেকে দেশে ফিরলেন ৪১ বাংলাদেশি

বিভিন্ন সময় অবৈধভাবে মিয়ানমারের প্রবেশের দায়ে সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)-র হাতে আটক হন বাংলাদেশি নাগরিকরা

আপডেট : ২৪ মার্চ ২০২২, ০১:০৯ পিএম

মিয়ানমারে আটক ৪১ বাংলাদেশি সাজা শেষে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে দেশে ফিরেছেন। বিভিন্ন সময় অবৈধভাবে মিয়ানমারের প্রবেশের দায়ে সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)-র হাতে আটক হন বাংলাদেশি নাগরিকরা।

বুধবার (২৩ মার্চ) বিকেলে কক্সবাজারের টেকনাফ জেটিঘাটে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান বিজিবির ২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ইফতেখার।

মিয়ানমার সে দেশের কারাগারে বিভিন্ন মেয়াদে সাজাভোগ শেষে ৪১ বাংলাদেশি নাগরিককে মুক্তি দিয়েছে। মিয়ানমারের সিটওয়েতে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসের কনস্যুলেট এক বছর ধরে প্রক্রিয়া চালানোর পর বিজিবি ও বিজিপির মধ্যে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে তাদের ফেরত আনার সিদ্ধান্ত হয়।

ফেরত আসা বাংলাদেশিরা কক্সবাজার ও বান্দরবানসহ বিভিন্ন জেলার বাসিন্দা। সকাল পৌনে ১০টা থেকে বেলা আড়াইটা পর্যন্ত মিয়ানমারের মংডুতে বিজিবি এবং বিজিপির মধ্যে পতাকা বৈঠক হয়। এতে বিজিবির পক্ষে শেখ খালিদের নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের প্রতিনিধি দল এবং বিজিপির ১ নম্বর ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল কাও নাং ইয়াং সোর নেতৃত্বে নয় সদস্যের প্রতিনিধি দল অংশ নেয় বলে জানান শেখ খালিদ।

তিনি বলেন, “পতাকা বৈঠকে উভয় দেশের প্রতিনিধি দলের সদস্যরা সীমান্তে মাদকপাচার, মানবপাচার, চোরাচালান ও অবৈধ অনুপ্রবেশ রোধে ফলপ্রসূ আলোচনা করেন। উভয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে পারস্পরিক সৌহার্দ্য ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক জোরদারে গুরুত্বারোপ করা হয়। আলোচনা শেষে মিয়ানমারের কারাগারে সাজাভোগ শেষে মুক্তি পাওয়া ৪১ বাংলাদেশি নাগরিককে বিজিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়।”

বিকাল সাড়ে ৩টায় নাফ নদীর টেকনাফ জেটিঘাট দিয়ে বিশেষ ট্রলারে করে তাদের ফেরত আনা হয় বলে জানান শেখ খালিদ।

টেকনাফের উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ও পুলিশের সহায়তায় ফেরত আনা বাংলাদেশিদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। কোয়ারেন্টিন শেষে তাদের স্বজনদের কাছে ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেন জানান লেফটেন্যান্ট কর্নেল শেখ খালিদ।

About

Popular Links