Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘ফুডপান্ডার’ ক্রেতা সেজে মোবাইল ফোন ছিনতাই করত চক্রটি

চক্রটির কাছে ডেলিভারি ব্যাগে থাকা ছিনতাই করা তিনটি আইফোন, ৩৩টি ফোনের সামনের ও পেছনের অংশ এবং আইফোনের ৬০টি যন্ত্রাংশ পাওয়া গেছে

আপডেট : ০৫ এপ্রিল ২০২২, ০২:০২ পিএম

খাবার সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান “ফুডপান্ডা”র ক্রেতা ও অনলাইনে বেচাকেনার বিজ্ঞাপন দিয়ে মোবাইল ফোন ছিনতাইকারী চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে বগুড়ার পুলিশ।

জেলার শাজাহানপুর থানা ও কৈগাড়ি ফাঁড়ির পুলিশ রবিবার (৩ এপ্রিল) রাতে শাজাহানপুর উপজেলার আশেকপুর ইউনিয়নের রানীরহাট বাজার এলাকায় চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে।

চক্রটির কাছে ডেলিভারি ব্যাগে থাকা ছিনতাই করা তিনটি আইফোন, ৩৩টি ফোনের সামনের ও পেছনের অংশ এবং আইফোনের ৬০টি যন্ত্রাংশ পাওয়া গেছে।

জেলা পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী সোমবার (৪ এপ্রিল) দুপুরে তার কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য দিয়েছেন।

গ্রেপ্তার মোবাইল ফোন ছিনতাই চক্রের তিন সদস্য হলো- গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহানগর গ্রামের নূর কবীর শাকিল (২৪), তার সহযোগী বগুড়ার শাজাহানপুরের জগন্নাথপুর গ্রামের মো. স্বাধীন (২০) ও একই গ্রামের সাদী আব্বাসী (২০)।
চক্রটির মূলহোতা শাকিল বগুড়া শহরের জামিলনগর এলাকায় বেলাল হোসেন নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে ভাড়া থাকে।

পুলিশ সুপার বলেন, “একটি চক্র বেশ কিছুদিন ধরে শাজাহানপুর উপজেলার রানীরহাট ও শাকপালাসহ বিভিন্ন স্থানে ফুডপান্ডার ক্রেতা সেজে এবং অনলাইনে বেচাকেনার বিজ্ঞাপন দিয়ে মানুষকে ডেকে এনে মোবাইল ফোন ছিনতাই করে আসছিল।”

ছিনতাই হওয়া একটি মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় তিন ছিনতাইকারীকে শনাক্ত করা হয়। ৩ এপ্রিল রাত সোয়া ১০টার দিকে রানীরহাট বাজার এলাকা থেকে চক্রের মূলহোতা নূর কবীর শাকিল, তার সহযোগী স্বাধীন ও আব্বাসীকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছে দুটি আইফোন, একটি ভিভো ফোন ও একটি লাল রঙের অ্যাপাচি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে।

জিজ্ঞাসাবাদে তারা মোবাইল ফোন ছিনতাইয়ের কথা স্বীকার করেছে। এরপর রাতেই তাদের নিয়ে বিভিন্ন স্থানে অভিযান
চালানো হয়। শহরের জামিলনগরে শাকিলের ভাড়া বাড়ির ঘর থেকে ফুডপান্ডার খাবার সরবরাহ ব্যাগের মধ্যে চোরাই ও ছিনতাই করা তিনটি আইফোন, ৩৩টি আইফোনে সামনে ও পেছনের অংশ এবং ৬০টি আইফোনের যন্ত্রাংশ পাওয়া যায়।

ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে নূর কবীর শাকিল জানায়, তার ভাড়া বাড়ির গোপন কক্ষে মোবাইল ফোনের মালিকানা ও পরিচিতি পরিবর্তন করার জন্য এক ফোনের যন্ত্রাংশ খুলে অন্য ফোনে সংযুক্ত করে থাকে। সে বিভিন্ন ব্রান্ডের দাবি মোবাইল ফোনের আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন, সেটিংস পরিবর্তন এবং মেইল অ্যাকাউন্ট
পরিবর্তন করতে পারে। মানুষের বিশ্বাস অর্জনের জন্য সে ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র ব্যবহার করে।

তারা পরস্পর যোগসাজশে ছিনতাই করা মোবাইল ফোন ও যন্ত্রাংশ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করে থাকে। গ্রেপ্তারকৃত ছিনতাইকারীদের বিরুদ্ধে শাজাহানপুর থানায় মামলা হয়েছে। তাদের আদালতের মাধ্যমে বগুড়া জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

About

Popular Links