Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

অদম্য মারুফা পেলো ১ লাখ টাকার অর্থ সহায়তা

মেডিকেল কলেজে পড়াশোনার সুযোগ পেলেও অর্থাভাবে তার ভর্তি নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছিল। বিষয়টি নিয়ে ঢাকা ট্রিবিউনে প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে নজরে আসে নাভানা গ্রুপের

আপডেট : ১৩ এপ্রিল ২০২২, ১২:৪৪ এএম

সাতক্ষীরার নলতা জেলেপল্লীর মেধাবী শিক্ষার্থী মারুফাকে ১ লাখ টাকা অর্থ সহায়তা দিয়েছে বেসরকারি শিল্প উদ্যোক্তা নাভানা গ্রুপ।

মঙ্গলবার (১২ এপ্রিল) সকালে নাভানা গ্রুপের পক্ষ থেকে মারুফার হাতে এ অর্থ সহায়তার চেক তুলে দেন প্রতিষ্ঠানটির মোংলা টার্মিনাল ও নাভানা এলপিজি ইউনিটের অপারেশনাল প্রধান খন্দকার তুহিন আক্তার।

প্রসঙ্গত, এ বছর মেডিকেল কলেজ ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে মেধা তালিকায় নাম এলেও অর্থাভাবে তার ভর্তি নিয়েই শঙ্কা দেখা দেয়। বিষয়টি নিয়ে গত ৭ এপ্রিল ঢাকা ট্রিবিউনে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

এরপর মেধাবী এ শিক্ষার্থীকে সহায়তার ঘোষণা দেয় নাভানা গ্রুপ।

চেক হস্তান্তরের সময় নাভানা গ্রুপ মোংলার এক্সিকিউটিভ (এইচআর) মো. ইসলামুল হক, তালা মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম গাজী, তালা প্রেসক্লাব সভাপতি নজরুল ইসলাম, মারুফা খাতুনের বাবা মো. আজিত বিশ্বাস ও মা তাসলিমা বেগম, চাচা মো. তানসল  বিশ্বাসসহ স্থানীয়রা উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে নাভানা গ্রুপের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা খন্দকার তুহিন আক্তার বলেন, “মারুফার মেডিকেল ভর্তির অনিশ্চয়তার খবর পেয়ে তাকে প্রয়োজনীয় সহায়তার সিদ্ধান্ত নেন গ্রুপের প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আরফাদুর রহমান বান্টি। সে অনুযায়ী তাকে ১ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করা হলো। তার স্বপ্নপূরণে প্রাথমিকভাবে এ অনুদান দেওয়া হলো। এমন অদম্য মেধাবীর গল্প তুলে ধরার জন্য নাভানা গ্রুপের পক্ষ থেকে ঢাকা ট্রিবিউনকে ধন্যবাদ।”

মারুফা খাতুনের বাড়ি সাতক্ষীরার তালা উপজেলার জেয়ালা গ্রামের জেলেপল্লীতে। এ বছর তিনি সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পান। মৎস্যজীবী অজিত বিশ্বাস ও গৃহিনি তাসলিমা বেগম দম্পতির তিন সন্তানের মধ্যে বড় মারুফা।

এমবিবিএস ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় ৭৪ স্কোর নিয়ে মেধা তালিকায় ৩৫৩৪ অবস্থান অধিকার করেন মারুফা খাতুন। তালিকা অনুযায়ী তিনি সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পাচ্ছেন। তিনি এ বছর উচ্চ মাধ্যমিকে তালা মহিলা কলেজের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ ৫ এবং ২০২০ সালে শহীদ আলী আহম্মাদ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিকে জিপিএ ৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হন।

About

Popular Links