Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

লিজ দেওয়া ট্রেনে কিলোমিটারে যাত্রীপ্রতি ব্যয় ২.৪৩ টাকা, আয় ০.৬২ টাকা

লিজে দেওয়া ট্রেনগুলোতে আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি হওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছে সংসদীয় কমিটি

আপডেট : ১৬ মে ২০২২, ১২:০৮ পিএম

বছর তিনেক আগে বেসরকারি খাতে লিজ দেওয়া ৪০টি ট্রেনে প্রতি কিলোমিটারে একজন যাত্রীর পেছনে খরচ হয়েছে ২.৪৩ টাকা। এর বিপরীতে আয় হয়েছে মাত্র ৬২ পয়সা।

মঙ্গলবার (১০ মে) জাতীয় সংসদে অনুষ্ঠিত রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে রেলপথ মন্ত্রণালয় এসব তথ্য উপস্থাপন করে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে দ্য ডেইলি স্টারের অনলাইন সংস্করণ।

প্রতিবেদনে আরও জানা যায়, লিজ দেওয়া ট্রেনগুলোতে একই সময়ে মালামার পরিবহন বাবদ কিলোমিটারে টনপ্রতি ৮ টাকা ৯৪ পয়সা ব্যয় হলেও আয় হয়েছে ৩ টাকা ১৮ পয়সা।

সংসদীয় কমিটির কাছে মন্ত্রণালয়ের জমা দেওয়া কার্যপত্র থেকে ট্রেনের আয়-ব্যয়ের এ হিসেব পাওয়া গেছে। তবে লিজে দেওয়া ট্রেনগুলোতে আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি হওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছে কমিটি। এ কারণে তারা মন্ত্রণালয়ের কাছে ট্রেনপ্রতি খরচের হিসেবও চেয়েছে।


আরও পড়ুন

বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে দুই রাজ্যের রেল সংযোগ চায় ভারত

মই দিয়ে ঈদযাত্রীদের ট্রেনে তোলার ‘রমরমা’ ব্যবসা

মেট্রোরেলের সর্বনিম্ন ভাড়া হতে পারে ২০ টাকা, সর্বোচ্চ ৯০

ট্রেন ওপর দিয়ে চলে যাওয়ার পরও ফোনে ব্যস্ত তরুণী!



তবে রেল মন্ত্রণালয় জানায়, ট্রেনভিত্তিক খরচের হিসাবটি তারা তৈরি করে না। বরং রেলওয়ে কস্টিং প্রোফাইলে ট্রেনের প্রতি কিলোমিটার পরিচালনার খরচ হিসাব করা হয় বলে জানায় তারা।

কমিটির কাছে মন্ত্রণালয়ের দেওয়া হিসাব অনুযায়ী, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান কর্তৃক রেলওয়ের পূর্বাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলে ৪০টি ট্রেন পরিচালিত হয়। বছরে এ ট্রেনগুলোতে খরচ হয়েছে ৯৮ কোটি ৬১ লাখ ৫৫ হাজার ৯৯০ টাকা। যদিও সংসদীয় কমিটির কাছে খরচের বিস্তারিত হিসেব দেওয়া হয়নি।

সংসদ সচিবালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বৈঠকে বেসরকারি পর্যায়ে পরিচালিত ৪০টি ট্রেনের বার্ষিক আয়-ব্যয়ের বিস্তারিত তথ্য পরবর্তী বৈঠকে উপস্থাপনের সুপারিশ করা হয়েছে।

কমিটির সভাপতি এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনো মন্তব্য না করে সংসদের গণসংযোগ শাখা থেকে তথ্য নিতে বলেন।

তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কমিটির এক সদস্য জানান, কমিটিতে বলা হয়েছে যে, বেসরকারি খাতে দিয়ে যদি রেল আর্থিক ক্ষতির মুখ দেখে, তাহলে তাহলে লিজ দেওয়াতে কী লাভ হলো? রেলওয়ে নিজেই তো চালাতে পারে। আর আমরা আয়-ব্যয় দুটোরই হিসেব চেয়েছিলাম। সেটা তারা দেয়নি। এজন্য পরের বৈঠকে বিস্তারিত জানাতে বলা হয়েছে।

এদিকে, সংসদীয় কমিটির গত বৈঠকে কমিটির পক্ষ থেকে অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য ঈদের পর কোরিয়া, চীন কিংবা জাপানের রেলওয়ের কার্যক্রম সরেজমিনে কমিটির সদস্যদের সফরের ব্যবস্থা করার সুপারিশ করা হলেও মন্ত্রণালয় থেকে দেশগুলোতে করোনাভাইরাসের কারণে এখনও ভ্রমণ সংক্রান্ত বিভিন্ন বিধিনিষেধ জারি থাকার কথা জানানো হয়েছে। সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর ভ্রমণ সংক্রান্ত বিধিনিষেধ শিথিল হলে ওই সফরের বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

About

Popular Links