Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

স্ত্রীকে ‘ফিরে পেতে’ স্বামীর মামলা

এদিকে, স্ত্রীকে হারিয়ে পাগলপ্রায় স্বামী খোঁজাখুঁজির পর জানতে পারলেন আরেক পুরুষের হাত ধরে পালিয়ে গেছেন প্রিয়তমা

আপডেট : ৩০ মে ২০২২, ১০:৫৫ পিএম

দীর্ঘ ৮ বছরের সংসার। হঠাৎ একদিন কাজ শেষে ফিরে স্বামী দেখলেন স্ত্রী ঘরে নেই। নেই স্ত্রীর কোনো জামা-কাপড়, গহনা কিংবা বহু বছর ধরে মাথায় ঘাম পায়ে ফেলে জমানো টাকাগুলোও।

স্ত্রীকে হারিয়ে পাগলপ্রায় স্বামী খোঁজাখুঁজির পর জানতে পারেন, আরেক পুরুষের হাত ধরে পালিয়ে গেছেন প্রিয়তমা। তাই স্ত্রীকে ফিরে পেতে এবার আইনের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন সব হারানো সেই স্বামী।

গল্প মনে হলেও ঘটনাটি ঘটেছে ফরিদপুরের সালথা উপজেলার গট্টী ইউনিয়নের ঠ্যানঠেনিয়ার ভাবুকদিয়া গ্রামে।

স্ত্রী লাভলী আক্তার সুমাইয়াকে (২৪) ফিরে পেতে আদালতে মামলা করেছেন স্বামী মো. সুজন সিকদার (৩০)।

ফরিদপুর জজ কোর্টের ৬ নম্বর আমলী আদালতে লাভলী আক্তার ও আলামিন শেখকে (৩১) আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন সুজন।

এদিকে, ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় মামলাটি আমলে নিয়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তরুণ বাশার।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ৮ বছর আগে ভাবুকদিয়া গ্রামের মান্নান মোল্লার মেয়ে সুমাইয়ার সঙ্গে টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর গ্রামের নয়ন সিকদারের ছেলে সুজনের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর স্ত্রী সুমাইয়াকে নিয়ে শ্বশুড়বাড়ি ভাবুকদিয়া গ্রামেই থাকতেন সুজন। মাঝে কিছুদিন কাতারে থাকলেও সম্প্রতি দেশে ফিরে ফরিদপুর শহরেই একটি রড কোম্পানিতে কাজ নেন তিনি।

সুজনের অভিযোগ, “ফরিদপুর সদরের কানাইপুর ইউনিয়নের শোলাকুন্ডু গ্রামের মো. আলামিন শেখ আত্মীয়তার সুবাদে আমাদের বাড়িতে যাওয়া-আসা করতেন। এ সুযোগে প্রেমের ফাঁদে ফেলে আমার স্ত্রীকে নিয়ে গত ২৬ মে পালিয়ে যায় সে।”

অভিযুক্ত আলামিন এক কন্যা সন্তানের জনক বলে জানা গেছে।

সুজন আরও বলেন, “আমার স্ত্রী কয়েক মাস ধরেই মোবাইলে একটি ছেলের সঙ্গে গোপনে কথা বলতো। গত রোজার মধ্যে তাকে এ বিষয়ে হাতে-নাতে ধরা হলে সে আর এমন করবে না বলে জানিয়েছিল।”

সুজন বলেন, “গত ২৬ মে আমি কাজে বের হলে আলামিন আমার স্ত্রীকে নিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় তারা ঘরের আলমারি ভেঙে নগদ ৩ লাখ টাকা ও ২ ভরি স্বর্ণের গহনাও সঙ্গে নিয়ে যায়।”

এ বিষয়ে সুমাইয়ার বাবা মান্নান মোল্লা বলেন, “আমি আমার মেয়েকে ফিরে পেতে চাই। আলামিনের পরিবারকে বারবার অনুরোধ করার পরেও তারা কোনো সহযোগিতা করছে না।”

অন্যদিকে, আলামিনের ভাই দুলাল শেখ জানান, আলামিনকে পাঁচ বছর আগে পারিবারিকভাবে বিয়ে দেওয়া হয়েছিল। তাদের ৩ বছরের একটি মেয়েও আছে। আলামিনের স্ত্রী একবার নারী নির্যাতন ও যৌতুকের জন্য মামলা করেছিলেন। সেটিও আদালতে চলছে। এরই মধ্যে সে অন্যের স্ত্রীকে নিয়ে পালিয়েছে।

মামলার কৌঁসুলি অ্যাডভোকেট তৌহিদুল ইসলাম স্টালিন বলেন, “সুজন ও সুমাইয়া এখনও আইনের চোখে স্বামী-স্ত্রী। অন্যদিকে আলামিনও বিবাহিত। তার বিরুদ্ধে নারী শিশু আদালতেও আরেকটি মামলা চলমান। আদালত বিষয়টি আমলে নিয়ে আলামিন ও সুমাইয়ার বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন।”

About

Popular Links