Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

শনিবার ঈদ উদযাপন করবেন ফরিদপুরের ১৩ গ্রামের মানুষ

প্রায় শত বছর ধরে ওই গ্রামগুলোতে সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর সঙ্গে মিল রেখে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর এবং ঈদ-উল-আজহা উদযাপন করা হয়

আপডেট : ০৮ জুলাই ২০২২, ০৫:৫৩ পিএম

ত্যাগের মহিমায় আল্লাহকে সন্তুষ্ট করতে আগামী রবিবার (১০ জুলাই) বাংলাদেশে মুসলিম বিশ্বের প্রধান উৎসব পবিত্র ঈদ-উল-আজহা উদযাপিত হবে। তবে সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর সঙ্গে মিল রেখে ফরিদপুরের বোয়ালমারী ও আলফাডাঙ্গা উপজেলার ১৩টি গ্রামের তিন হাজারের বেশি মানুষ শনিবারেই পশু কোরবানি এবং ঈদ উদযাপন করবেন।

বিষয়টি ঢাকা ট্রিবিউনকে নিশ্চিত করেছেন আগাম ঈদ পালনকারী মুসল্লীদের সমন্বয়কারী আলফাডাঙ্গা সরকারি ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক বোয়ালমারীর কাটাগড় গ্রামের বাসিন্দা মাহিদুল হক। প্রায় শত বছর ধরে গ্রামগুলোতে সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর সঙ্গে মিল রেখে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর এবং ঈদ-উল-আজহা উদযাপন করা হয়।

মাহিদুল হক বলেন, বোয়ালমারী উপজেলার শেখর ও রুপাপাত ইউনিয়নের কাটাগড়, সহস্রাইল, শেখর, মাইটকোমড়া, ভুলবাড়িয়া, রাখালতলী, বারাংকুলা, দড়ি সহস্রাইল এবং আলফাডাঙ্গা উপজেলার ইছাপাশা ও শুকুরহাটাসহ এ ১৩টি গ্রামের প্রায় তিন সহস্রাধিক মানুষ শনিবার ঈদ-উল-আজহা উদযাপন করবেন।

আলফাডাঙ্গা সরকারি ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক বলেন, আমাদের পুর্বপূরুষ থেকে আমরা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা মির্জাখিল পীরের তরিকাপ্রাপ্ত চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার হযরত ইয়াছিন আলী (রহ.) পীরের অনুসারী। আমরা যারা মির্জাখিল পীরের অনুসারী তারা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে রোজা রাখা, ঈদ-উল-ফিতর এবং ঈদ-উল-আজহার নামাজ আদায় করে থাকি। যদিও নতুন প্রজন্মের অনেকে এ নিয়ম মানতে চায় না।

ঈদের জামাতের বিষয়ে মাহিদুল হক জানান, এবার সস্রাইল, মাইটকুমড়া ও রাখালতলীতে ঈদের তিনটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে। সকাল সাড়ে ১০টায় রুপাপাত উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে। আলফাডাঙ্গা গ্রামের মুসল্লীরাও সস্রাইলে এসে ঈদের নামাজ আদায় করবে।

শেখর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ জানান, সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর সঙ্গে মিল রেখে ঈদ উদযাপনের বিষয়টি তাদের দীর্ঘদিনের রেওয়াজ। তারা এ দিন কোরবানি করেন ও একে অন্যের বাড়িতে মাংস বিতরণ করেন।

বোয়ালমারী উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এম মোশাররফ হোসেন মুশা মিয়া জানান, সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে উপজেলার প্রায় ১৩টি গ্রামের অধিকংশ মানুষ এ অগ্রিম রোজা ও দুই ঈদ পালন করে থাকেন।

About

Popular Links