Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সাবেক বিচারপতি ও ভাষা সৈনিক কাজী এবাদুল হক আর নেই

১৯৫২ সালে ফেনীতে ভাষা আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা রাখা বিচারপতি কাজী এবাদুল হক ২০১৬ সালে একুশে পদকে ভূষিত হন 

আপডেট : ১৫ জুলাই ২০২২, ১১:০৩ এএম

একুশে পদকপ্রাপ্ত ভাষা সৈনিক ও আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি কাজী এবাদুল হক মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি...রাজিউন)।

বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) দিবাগত রাত ১২টা ১০ মিনিটে ঢাকার শমরিতা হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র ব্যারিস্টার মুহাম্মদ সাইফুর রহমান বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

ব্যারিস্টার মুহাম্মদ সাইফুর রহমান জানান, শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে দুপুর আড়াইটায় বিচারপতি কাজী এবাদুল হকের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

বিচারপতি কাজী এবাদুল হকের মৃত্যুতে প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি তিনি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।

১৯৩৬ সালের ১ জানুয়ারি ফেনীতে জন্ম নেন বিচারপতি কাজী এবাদুল হক। শিক্ষাজীবনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী থাকা অবস্থায় তিনি ১৯৫২ সালে ফেনীতে ভাষা আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা রাখেন। তিনি ১৯৫৪-৫৫ সালে ফেনী ভাষা সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ছিলেন।

বিচারপতি কাজী এবাদুল হকের স্ত্রী অধ্যাপক শরিফা খাতুনও ভাষা আন্দোলনে সাহসী ভূমিকা পালন করেন। বিভিন্ন স্কুলে গিয়ে তিনি বাংলা ভাষার পক্ষে প্রচারণা চালান। পাশাপাশি স্কুলের ছাত্রীদের সংগঠিত করেন।

কাজী এবাদুল হক ১৯৬৬ সালে হাইকোর্টে আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন। ১৯৯০ সালে বিচারক হিসেবে হাইকোর্টে যোগ দেওয়া বিচারপতি কাজী এবাদুল হক বাংলা ভাষায় রায় লিখে নজির সৃষ্টি করেন।

হাইকোর্ট বিভাগে ১০ বছর দায়িত্ব পালনের পর আপিল বিভাগেও এক বছর বিচারিক দায়িত্ব পালন করেন কাজী এবাদুল হক। ২০০১ সালে তিনি সর্বোচ্চ আদালত থেকে অবসরে যান। কাজী এবাদুল হক বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যানের দায়িত্বও পালন করেছেন।

২০১৬ সালে বিচারপতি কাজী এবাদুল হক একুশে পদকে ভূষিত হন। পরবর্তীতে ২০১৭ সালে তার স্ত্রী অধ্যাপক শরিফা খাতুনও একুশে পদক অর্জন করেন। তাদের মেয়ে বিচারপতি কাজী জিনাত হক হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি।

About

Popular Links