Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

গার্মেন্টস পণ্যের আড়ালে ৩৭ কোটি টাকার মদ, গ্রেপ্তার ৩

এসব মদ তারা ঢাকার বিভিন্ন ক্লাবে সরবরাহ করত

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২২, ০৭:২৬ পিএম

শুল্ক ফাঁকি দিয়ে গার্মেন্টস পণ্যের আড়ালে প্রায় ৩৭ কোটি টাকা মূল্যের প্রায় ৩৭ হাজার বোতল বিদেশি মদ জব্দের পাশাপাশি তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

শনিবার (২৩ জুলাই) রাতে দুজনকে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের দেওয়া বক্তব্যের ভিত্তিতে সিন্ডিকেটের অন্যতম হোতা আব্দুল আহাদকে রাজধানীর বিমানবন্দর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। এ সময় তাদের কাছ থেকে কোটি টাকা মূল্যের দেশি ও বিদেশি মুদ্রা উদ্ধার করা হয়।

রবিবার রাজধানীর কারওয়ানবাজারে র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মইন।

তিনি জানান, শনিবার র‍্যাব-১১ নারায়ণগঞ্জে আভিযান চালিয়ে মালবাহী দুটি কন্টেইনার জব্দ করে। এ সময় কন্টেইনারে ৩৬ কোটি ৮৮ লাখ টাকা মূল্যের ৩৬ হাজার ৮১৬ বোতল বিদেশী মদ পাওয়া যায়।

র‍্যাব বলছে, এটি অবৈধ মদের সবচেয়ে বড় চালান। চক্রটি এর আগেও দুবাই থেকে ৩টি চালানে প্রায় ১৪ হাজার বোতল মদ এনেছে। এসব মদ তারা ঢাকার বিভিন্ন ক্লাবে সরবরাহ করত।

খন্দকার আল মইন বলেন, “এই মাদক সিন্ডিকেটের অন্যতম হোতা আহাদ এবং মিজানুর রহমান আশিক সম্পর্কে সহোদর এবং এই সিন্ডিকেটের মূলহোতা উভয়ের পিতা আজিজুল ইসলাম। তারা এক বছর ধরে এই অবৈধ কারবারের সঙ্গে জড়িত। তারা সিঅ্যান্ডএফের সঙ্গে যোগসাজশের মাধ্যমে এই অবৈধ মাদক আমদানি কার্যক্রম করে থাকে।”

তিনি জানান, এই অবৈধ মাদক আমদানির ক্ষেত্রে তারা বিভিন্ন কোম্পানির কাগজপত্র ব্যবহার করে। চক্রটি দেশে টিভি ও গাড়ির পার্টস ব্যবসার আড়ালে অবৈধ মাদকদ্রব্য বিপণন নেটওয়ার্ক তৈরি করেছে। অবৈধ মাদক বিদেশ থেকে আনার পরে মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর, রাজধানীর বংশাল ও ওয়ারীতে ওয়্যারহাউসে রাখা হয়। পরবর্তীতে সুবিধাজনক সময়ে এসব অবৈধ মাদক বিপণন করে থাকে। ক্ষেত্রবিশেষে পরিবহনকৃত কন্টেইনার হতে সরাসরি ক্রেতাদের নিকট সরবরাহ করে।

About

Popular Links