Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

রাত ১১টার পর চলবে না গাজীপুরের ‘তাকওয়া’

গত ৬ আগস্ট দিবাগত রাতে তাকওয়া পরিবহনের বাসে এক নারী যাত্রীকে গণধর্ষণ করা হয়

আপডেট : ১৪ আগস্ট ২০২২, ০৯:৩৩ পিএম

গাজীপুরের সড়ক-মহাসড়কে রাত ১১টার পর আঞ্চলিক পরিবহন “তাকওয়া”র কোনো বাস চলবে না। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে এবং যাত্রীদের নিরাপত্তা বিবেচনায় এ সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছেন জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি সুলতান উদ্দিন আহমেদ।

রবিবার (১৪ আগস্ট) বিকেলে গাজীপুরের মাওনা হাইওয়ে পুলিশের সঙ্গে পরিবহন মালিক, চালক, শ্রমিকদের মতবিনিময় ও আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।

শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি সুলতান উদ্দিন বলেন,  গত ৬ আগস্ট রাতে তাকওয়া পরিবহনের একটি বাসে নারী যাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনা পরিবহন সেক্টরের জন্য লজ্জাজনক। এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধ এবং যাত্রীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো।

তিনি ঘোষণা দেন, “গাজীপুর জেলার আভ্যন্তরীণ সব সড়ক-মহাসড়কে আঞ্চলিক পরিবহন তাকওয়া বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এ সিদ্ধান্ত গত পাঁচ দিন ধরে গুরুত্ব সহকারে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। বিষয়টি আমরা গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি), জেলা প্রশাসক (ডিসি), জেলা পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশকে জানিয়েছি।”

এই শ্রমিক নেতা জানান, চালকের লাইসেন্সের তথ্য, জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি), স্থায়ী ও বর্তমান ঠিকানার তথ্য সংবলিত একটি ডাটাবেস গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কার্যালয়ে জমা দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও তাকওয়া পরিবহনের প্রতিটি বাসে জিপিএস ট্র্যাকার সংযুক্ত করা হয়েছে। এ কারণে গাড়িটি কোথায়-কীভাবে যাচ্ছে ও কোন সড়ক ধরে চলছে তার সঠিক বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে। 

তিনি বলেন, “রাতে জেলাভিত্তিক আঞ্চলিক পরিবহন চলাচল বন্ধে একটি মোবাইল টিম গঠন করে দিয়েছি। মোবাইল টিম দুটি মাইক্রোবাসে করে সার্বক্ষণিক টহল দিতে থাকে। এছাড়াও জনগুরুত্বপূর্ণ সব জায়গায় পাহারাদার নিয়োগ করা হয়েছে। এটা আমাদের সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত। যে গাড়িগুলো সিদ্ধান্ত না মানবে আমাদের লোক তাদের আটক করে নির্দিষ্ট ডাম্পিং পয়েন্টে নিয়ে আটকে রাখবে। পরদিন ওই গাড়ি চলাচল বন্ধ করে চালককে সাসপেন্ড করা হবে। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে প্রতিদিন রাতে শ্রমিক নেতাদের সমন্বয়ে গঠিত দুটি টিম ঢাকা-ময়মনসিংহ ও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে তদারকি করছে। সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে যারা রাতে পরিবহন চালাবে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

মাওনা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন শ্রমিকলীগ নেতা মুজিবুর রহমান, জালাল উদ্দিন, ফরিদ আহমেদ, শ্রীপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি আলমগীর হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদ রানা, শ্রীপুর উপজেলা সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আনিছু রহমান, সাধারণ সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ সেলিম, সাংবাদিক জামাল উদ্দিন, গাজীপুর জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সহ-সভাপতি আবুল হোসেন পালোয়ান ও হাজী মোহাম্মদ হারেছ উদ্দিনসহ পরিবহন মালিক, চালক ও তাদের সহকারীরা।

গত ৬ আগস্ট দিবাগত রাতে গাজীপুর মহানগরের ভোগড়া বাইপাস থেকে ভালুকার স্কয়ার মাস্টারবাড়ি যাওয়ার উদ্দেশে তাকওয়া পরিবহনের একটি বাসে ওঠেন এক দম্পতি। বাসটি শ্রীপুরের মাওনা এলাকায় পৌঁছালে চালক, হেলপার এবং আরও কয়েকজন ওই নারীর স্বামীকে মারধর করে বাস থেকে ফেলে দেয়। এরপর বাসটিকে ঘুরিয়ে গাজীপুর ফিরে আসার পথে অভিযুক্তরা তাকে গণধর্ষণ করে।

About

Popular Links