Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

টাঙ্গাইলে গলায় বেল্ট পেঁচিয়ে মাদ্রাসাছাত্রকে হত্যার অভিযোগ

এ হত্যাকাণ্ডে প্রতিবেশী একটি ছেলে জড়িত বলে অভিযোগ তুলেছেন নিহতের বাবা শহীদ মিয়া

আপডেট : ৩০ আগস্ট ২০২২, ০৪:৪০ পিএম

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে শারীরিক নির্যাতন ও গলায় বেল্ট পেঁচিয়ে সিফাত (১৩) নামের সপ্তম শ্রেণির এক মাদ্রাসাছাত্রকে হত্যার অভিযোগে উঠেছে। নিহত সিফাত উপজেলার ভাতগ্রাম ইউনিয়নের গোড়াইল গ্রামের শহীদ মিয়ার ছেলে।

সোমবার (২৯ আগস্ট) মধ্যরাতে জাতীয় জরুরি সহায়তা নম্বর ৯৯৯-এ খবর পেয়ে পোষ্টকামুরী মাঝিপাড়া এলাকার একটি ক্ষেত থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহতের লাশ ময়নাতদন্তদের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

সিফাতের বন্ধু নুরুল আমীন ঢাকা ট্রিবিউনকে জানায়, সোমবার সন্ধ্যায় তারা দুজন বংশাই রেলক্রসিং এলাকায় চটপটি খেতে গিয়েছিল। চটপটি খাওয়ার সময় সিফাতের কানে কানে কিছু একটা বলে অজ্ঞাত এক লোক। তারপর সিফাত তাকে বসতে বলে পশ্চিম দিকের রেলক্রসিং বরাবর চলে যায়। দীর্ঘক্ষণ পরেও সিফাত ফিরে না আসায় বাড়ি ফিরে যায় নুরুল আমিন।

এদিকে, সিফাত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে প্রতিবেশী একটি ছেলে জড়িত বলে অভিযোগ তুলেছেন বাবা শহীদ মিয়া।

তিনি বলেন, “১০ থেকে ১২ দিন আগে আমার ছেলেকে মারপিট করার ঘটনায় ওই ছেলেকে স্থানীয় মাতব্বররা জুতাপেটা করেন। সঙ্গে আরও ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। হত্যাকাণ্ডের পর থেকে ওই ছেলে আত্মগোপনে চলে যায়।”

এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে জড়িতদের বিচার দাবি করেন সিফাতের বাবা।

এ বিষয়ে মির্জাপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মিনহাজ উদ্দিন ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “প্রাথমিকভাবে লাশের গায়ে বেশকিছু আঘাত ও নৃশংসতার আলামত পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে সিফাত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে একাধিক ব্যক্তি জড়িত।”

এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম বলেন, “এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার চেষ্টা চলছে। ময়নাতদন্তদের রিপোর্ট পেলে আসল রহস্য বের হবে।”

About

Popular Links