Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

৩ ঘণ্টার বৃষ্টিতে নাস্তানাবুদ সিলেট

ক্যাম্পাসে পানি উঠে যাওয়ায় সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের ক্লাস পরীক্ষা বন্ধ রাখা হয়

আপডেট : ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৭:০৪ পিএম

তিন ঘণ্টার বৃষ্টিতে সিলেট নগরীতে ফের জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। সোমবার সকালের বৃষ্টির ফলে নগরীর অনেক দোকানপাটে উঠে যায় পানি। সীমাহীন ভোগান্তিতে পড়েন ক্রেতা-বিক্রেতারা। ব্যাহত হয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাঠদানও। ক্যাম্পাসে পানি উঠে যাওয়ায় সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের ক্লাস পরীক্ষা বন্ধ রাখা হয়। অবশ্য, বৃষ্টি নামার পর পানি নেমে গেলে জনমনে ফিরে আসে স্বস্তি।

নগরীর বাসিন্দারা জানান, রবিবার মধ্যরাত থেকে সিলেটে বর্ষণ হচ্ছে। সোমবার সকাল ৬টা থেকে ভারি বর্ষণ হতে থাকে, সকাল ৯টা পর্যন্ত তা অব্যাহত থাকে। এ কারণে নগরের নিচু এলাকার রাস্তাঘাটের পাশাপাশি বাড়িঘর, দোকানপাটে পানি ঢুকে পড়ে।

সিলেট আবহাওয়া অফিসের সিনিয়র আবহাওয়াবিদ সাইদ আহমদ চৌধুরী ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, সোমবার সকাল ৬টা থেকে ৯টার মধ্যে সিলেটে ১০৮.২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

তিনি বলেন, “কম সময়ের মধ্যে এটা অনেক বেশি পরিমাণ বৃষ্টি। যার ফলে নগরীতে দ্রুত জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।”

সরেজমিনে দেখা গেছে, ভারি বৃষ্টির ফলে নগরীর জিন্দাবাজার, বারুতখানা, হাওয়াপাড়া, রাজারগলি, উপশহর, যতরপুর, ছড়ারপাড়, ভাতালিয়া, জলারপাড়, তালতলা, চৌহাট্টা, সুবিদবাজার, ঘাসিটুলা, শামীমাবাদ, শিবগঞ্জ, নয়াবাজার, খাসদবির, মেডিকেল রোড, মজুমদারিম পাঠানটুলা, আম্বরখানা বড়বাজার, শিবগঞ্জ ও আরামবাগসহ বিভিন্ন এলাকার সড়ক তলিয়ে যায়। অনেক এলাকায় সড়কে হাঁটুপানি জমে। সড়ক উপচে পানি ঢুকে পড়ে মানুষের বাসা-বাড়িতে। অনেকের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেও ঢুকে পড়ে পানি। বিশেষ করে নিচু এলাকায় বসবাসরত মানুষের দুর্ভোগ ছিল বেশি। শুধু পানি ঢুকে পড়াই নয়, ড্রেনের ময়লা-আবর্জনা মিশ্রিত পানি অনেকের বাসা-বাড়িতে ঢুকেছে।

নগরীর চৌহাট্টা এলাকার একটি ফার্মেসির কর্মী ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, সকালে তাদের দোকান বন্ধ ছিল। সকাল ৯টায় এসে দেখেন ভেতরে পানি। পানিতে তাদের অনেক ওষুধ নষ্ট হয়ে গেছে বলে জানান তিনি। 

নগরীর ছড়ারপাড়ের বাসিন্দা সুনীল সিংহ বলেন, “জলাবদ্ধতার কষ্টের কথা বলে লাভ নাই। আমরা থাকি বাসার নিচতলায়। জিনিসপত্র নিয়ে টানাটানি করতে করতে আমরা হয়রান।”

নগরীর টিলাগড় এলাকার স্কলার্স হোমের চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী নাহি মুনকার নাহিন জানায়, সে বাসে করে স্কুলে যায়। সকালে প্রচণ্ড বৃষ্টির কারণে রাস্তায় পানি জমে যায়। আরামবাগ এলাকায় হাঁটু সমান পানিতে আটকে যায় তাদের বাস। পরে অন্য বাসে করে তাদের স্কুলে নেওয়া হয়।

নাহিন আরও জানায়, তাদের দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা চলছে। সকাল সাড়ে ৮টায় তাদের স্কুলে পৌঁছার কথা। কিন্তু, বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতার কারণে সকাল ৯টায় তাদের বাসটি স্কুলে পৌঁছায়।

এদিকে, সড়কে পানি উঠে যাওয়ায় চলাচলেও ভোগান্তিতে পড়তে হয় নগরবাসীকে। সকালে অফিসের উদ্দেশে বেরিয়েছিলেন শিবগঞ্জের আবির ফয়সাল। কিন্তু জলমগ্ন সড়কে যানবাহন না পেয়ে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষার পর তিনি বাসায় ফিরে যান।

এবারের বৃষ্টির মৌসুমে বেশ কয়েকবার জলমগ্ন হয়েছে সিলেট নগরী। গত জুলাই মাসেও জলাবদ্ধতার কবলে পড়েন নগরবাসী।

ওসমানী মেডিকেল কলেজের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ

কয়েক ঘণ্টা বৃষ্টিতে জলাবদ্ধ হয়ে পড়ে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল। এতে বন্ধ করে দেওয়া হয় কলেজের ক্লাস-পরীক্ষা। এছাড়া সেবা নিতে আসা রোগীদেরও পোহাতে হয় চরম দুর্ভোগ। 

সরেজমিনে দেখা গেছে, হাসপাতালটির অভ্যন্তরে কোথাও কোথাও হাঁটু থেকে কোমর পর্যন্ত পানি জমে রয়েছে। আঙিনা পেরিয়ে কলেজের নিচতলার শ্রেণিকক্ষ ও প্রশাসনিক ব্লকে পানি ঢুকে পড়েছে।

সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. মঈনুল হক ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধের বিষয়টি ঢাকা ট্রিবিউনকে নিশ্চিত করেছেন।

About

Popular Links