Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বগুড়ার বাঙালি নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন, ঝুঁকির মুখে সেতু

স্থানীয়রা জানান, বালু উত্তোলনকারীরা অনেক প্রভাবশালী। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেও লাভ হয় না

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:১৯ পিএম

বগুড়ার সারিয়াকান্দির বাঙালি নদীর জোড়গাছা সেতুর কাছ থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন চলছে। স্থানীয় প্রভাবশালীরা প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে গত দু’মাস ধরে অবাধে বালু উত্তোলন করছেন। এতে সেতুটি ঝুঁকির মুখে পড়লেও প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। এলাকার ভুক্তভোগীরা এ ব্যাপারে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, এ সেতু দিয়ে বগুড়া জেলা সদর, সারিয়াকান্দি ও গাবতলীসহ আশপাশের বিভিন্ন রুটে যানবাহন চলাচল করে। গুরুত্বপূর্ণ এই সেতুটির প্রায় ২০০ মিটার উত্তরে তিনটি ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বোরিং করে অবাধে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছেন প্রভাবশালীরা। প্রতি ট্রাক বালু আড়াই হাজার থেকে তিন হাজার টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। বালু বিক্রি করে ব্যবসায়ীরা লাভবান হলেও সেতুর চারপাশের এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। এছাড়া সারাদিন বিভিন্ন যানবাহনে বালু পরিবহন করায় গ্রামীণ সড়কগুলোও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

জোড়গাছা গ্রামের কৃষক আমজাদ হোসেন, সরাফত হোসেন, মোবারক আলী ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, বেশ কিছুদিন ধরে ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় প্রভাবশালী নেতাকর্মীরা সেতুর পাশে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বোরিং করে বালু উত্তোলন করছেন। এতে সেতুর আশপাশের জমি ভেঙে নদীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে।

তারা বলেন, “বালু উত্তোলনকারীরা অনেক প্রভাবশালী। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেও লাভ হয় না।”

অভিযোগ প্রসঙ্গে বালু উত্তোলনকারী আলমগীর মণ্ডল ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “সেতুর কাছ থেকে আমি বালু উত্তোলন করছি না। অন্যত্র থেকে কেনা বালু সেখানে স্তূপ করে রাখা হয়েছে। বিএনপি নেতা সোনা মিয়া সুজন বালু উত্তোলনের সঙ্গে জড়িত।”

তবে ফোন না ধরায় সোনা মিয়া সুজনের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

ভেলাবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম শিপন জানান, বালু উত্তোলন ও বিক্রির সঙ্গে জড়িতদের তিনি চেনেন না। অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করায় সেতুর আশপাশে নদী তীরে ভাঙন দেখা দিয়েছে। সেতুটি হুমকির মুখে পড়ায় তিনি বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

অভিযোগ প্রসঙ্গে সারিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ রেজাউল করিম ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের বিষয়টি আমার জানা ছিল না। শীঘ্রই অভিযান চালিয়ে ড্রেজার মেশিনগুলো জব্দ এবং বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

About

Popular Links