Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কক্সবাজারে শিশুকে গাছে বেঁধে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:১৯ এএম

কক্সবাজারের ঈদগাঁও উপজেলায় ১৩ বছর বয়সী এক শিশুকে সুপারি গাছের সঙ্গে বেঁধে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার পোকখালী ইউনিয়নের পূর্ব ইছাখালী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) এ ঘটনায় দায়ের করা মামলার আসামি মো. আলমকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। 

নিহত মো. সাজ্জাদ (১৩) উপজেলার ইসলামাবাদ ইউনিয়নের চার নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর সাত ঝুলাকাটা গ্রামের নুরুল হুদার ছেলে। 

মামলার আসামিরা হলেন- আব্দুস সালাম প্র: টুইল্যা (৫৫), তার স্ত্রী মিনুয়ারা বেগম (৪০) ও তাদের দুই ছেলে মো. আলম (৩০) ও নুরুল আজিম প্র. কালু (১৫)।

এ বিষয়ে ঈদগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল হালিম বলেন, “শনিবার বিকেলে শিশু সাজ্জাদকে একদল দুর্বৃত্ত স্থানীয় আমির সুলতানের নাতি ইশফাতের গ্রাম্য চা দোকানের সামনে থেকে টানা-হেচড়া করে পাশ্ববর্তী পোকখালী ইউনিয়নের পূর্ব ইছাখালী গ্রামে নিয়ে যায়। সেখানে সুপারি গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে রাখে। বিকেল সাড়ে ৫টার সময় অভিযুক্ত মো. আলম এর নের্তৃত্বে দুর্বৃত্তরা শিশু সাজ্জাদকে বাঁধা অবস্থায় বেধড়ক পিটায়। এতে গুরুতর আহত সাজ্জাদ মারা গেছে ভেবে তাকে ফেলে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।”

তিনি বলেন, “স্থানীয়রা সাজ্জাদকে নিথর অবস্থায় উদ্ধার করে বাড়িতে এনে স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা করে তার পরিবার। পরবর্তীতে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় রবিবার সন্ধ্যা ৬ টার সময় সাজ্জাদকে ঈদগাঁও মেডিকেলে নিয়ে গেলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।”

তিনি জানান, এ ঘটনায় নিহত সাজ্জাদের বাবা বাদী হয়ে চারজনের বিরুদ্ধে ঈদগাঁও থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ মামলায় ঈদগাঁও থানা এলাকার পূর্ব ইছাখালী এলাকায় অভিযান চালিয়ে মো. আলমকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান তিনি।

এ ঘটনায় জড়িত অন্যান্য আসামিদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানান ওসি আবদুল হালিম।

এ বিষয়ে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মাহফুজুল ইসলাম বলেন, “প্রাথমিক তথ্যে জানা গেছে নিহত শিশু সাজ্জাদের সঙ্গে মো. আলমের শিশু পুত্রের সঙ্গে ঝগড়া হয়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে মো. আলম তার ছেলের বন্ধু ১৩ বছরের শিশু সাজ্জাদকে গাছে বেঁধে নির্যাতন করে।” 

তিনি আরও জানান, ঈদগাঁও থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

About

Popular Links