Thursday, May 23, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ছাত্রীদের উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ, শিক্ষককে মারধর করলো দুই সাবেক ছাত্র

মারধরে ওই শিক্ষকের মুখে চারটি সেলাই পড়েছে

আপডেট : ০৯ নভেম্বর ২০২২, ১০:০৮ পিএম

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলায় ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করে আসছিল বখাটেরা। প্রতিবাদ করায় এক শিক্ষককে পিটিয়ে  রক্তাক্ত করেছে স্কুলেরই দুই সাবেক ছাত্র। 

বুধবার (৯ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার হরগজ শহীদ স্মৃতি বিদ্যালয়ের মূল গেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী শিক্ষকের নাম মো. তোফাজ্জল হোসেন। বিদ্যালয়ের ইংরেজি ও শরীর চর্চা বিভাগের এই শিক্ষকের মুখে চারটি সেলাই পড়েছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. বজলুর রহমান ঢাকা ট্রিবিউনকে এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, “শিক্ষককে মারধর করা হচ্ছে শুনে আমরা ছুটে যাই। তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় কমিউনিটি ক্লিনিকে নেওয়া হয়। সেখান থেকে তাকে উপজেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়। তার মুখে চারটি সেলাই দেওয়া হয়েছে।”

প্রধান শিক্ষক আরও বলেন, “আমাদের স্কুলেরই সাবেক দুই ছাত্র আলামিন (২১) ও রমজান আলী সজল (২১) এ ঘটনা ঘটিয়েছে।” 

এ ঘটনায় প্রধান শিক্ষক বাদী হয়ে সাটুরিয়া থানায় একটি মামলা করেছেন। অভিযুক্ত আল আমিন ও সজল ওই গ্রামেরই বাসিন্দা।

আহত শিক্ষক মো. তোফাজ্জল হোসেন বলেন, “আমি স্কুলের কাছে প্রাইভেট পড়াচ্ছিলাম। তখন আমার ফোনে একটি অচেনা নম্বর থেকে কল আসে। রিসিভ করলে স্কুলে ঢোকার আগে গেটের সামনে দেখা করতে বলে বখাটে আলামিন ও রমজান। পড়ানো শেষ করে ১০টার দিকে গেটের সামনে গেলে তারা আমাকে মারধর করে পালিয়ে যায়।”

বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় তাকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ এই শিক্ষকের।

হরগজ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন জ্যোতি বলেন, “স্কুলের শিক্ষককে মারধরের ঘটনা খুবই দুঃখজনক। আমি বখাটে যুবকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই।” 

এ বিষয়ে বিদ্যালয়টির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আ. খ. ম নুরুল হক বলেন, “শিক্ষক পেটানোর ঘটনাটি ন্যাক্কারজনক। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি।”

যোগাযোগ করা হলে সাটুরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুকুমার বিশ্বাস বলেন, “শিক্ষক মারধরের ঘটনায় দুজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেয়েছি। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।”

About

Popular Links