Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

মন্ত্রী: বুয়েটের ফারদিনকে হত্যা করা হয়েছে, তার সুনির্দিষ্ট প্রমাণ নেই

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সুনির্দিষ্ট প্রমাণসহ কোনো তথ্য পাইনি। আমরা শুধুমাত্র তথ্যের ওপর কথা বলি’

আপডেট : ১৪ নভেম্বর ২০২২, ১০:২৩ পিএম

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র ফারদিন নূর পরশ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এখনও কোনো সুস্পষ্ট প্রমাণ পায়নি বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, “আমরা সুনির্দিষ্ট প্রমাণসহ কোনো তথ্য পাইনি। আমরা শুধুমাত্র তথ্যের ওপর কথা বলি।”

সোমবার (১৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে নৌ পুলিশের নবম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

আরও পড়ুন- ফারদিনের বাবা: খুনিদের লক্ষ্যবস্তু ছিল হৃদয় ও মস্তিষ্ক

এর আগে সোমবার বেলা ১১টার দিকে বুয়েটের শহীদ মিনারে মানববন্ধনে অংশ নিয়ে ফারদিনের বাবা কাজী নূর উদ্দিন বলেন, “চিকিৎসকদের কাছ থেকে জেনেছি, ফারদিনের বুকে ও মাথায় আঘাত করা হয়েছে। প্রায় ছয় ফুটের দেহটা...পা থেকে মাথা পর্যন্ত অন্যকোনো পয়েন্টে আঘাত থাকতে পারত। তা না হয়ে শুধু মাথা ও বুকে প্রচণ্ড আঘাত করা হয়েছে। তার মুঠোফোন, ব্লুটুথ- সবই রেখে দেওয়া হয়েছে (লাশের সঙ্গেই ছিল)। তার মানে, টার্গেটটা ছিল ফারদিনের হৃদয় এবং মস্তিষ্ক, যা চিন্তা করে। এটা যারা করেছেন, তারা হয়তো এটার (চিন্তা) পক্ষে ছিলেন না বা নিতে পারতেন না।”

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর আস্থা রেখে কাজী নূর উদ্দিন রানা বলেন, “তদন্তের দায়িত্বে থাকা সংস্থাগুলো দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করি। আমার সন্তান কারও শত্রু ছিল না। নিজের পেশাগত জীবনে আমি কারও সঙ্গে শত্রুতা তৈরি করিনি। এমন একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন করাটা সহজ বিষয় নয়।”

আরও পড়ুন- ফারদিনের মোবাইল ফোনের সর্বশেষ লোকেশন ছিল নারায়ণগঞ্জ

প্রসঙ্গত, ৪ নভেম্বর ঢাকা থেকে নিখোঁজ হওয়ার তিন দিন পর ৭ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে বুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের শিক্ষার্থী ফারদিন নূরের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় গত বুধবার রাতে কাজী নূর উদ্দিন রাজধানীর রামপুরা থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলায় ফারদিনের বন্ধু আয়াতুল্লাহ বুশরার নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামি করা হয়। 

বৃহস্পতিবার সকালে তাকে রামপুরার বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি এখন পাঁচ দিনের রিমান্ডে রয়েছেন। এ ঘটনার তদন্ত করছে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। তবে এখন পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য জানাতে পারেনি তারা।

About

Popular Links