Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

টুঙ্গিপাড়ায় ২০ জেলার ইজতেমা, বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে মুসল্লিরা

শ্রদ্ধা জানাতে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে গেছেন মুসল্লিরা

আপডেট : ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০৪:০৩ পিএম

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২০ জেলার তিন দিনের ইজতেমা চলছে। শুক্রবার থেকে টুঙ্গিপাড়ার গওহরডাঙ্গা মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে এ ইজতেমা শুরু হয়।

সোমবার (২৮ নভেম্বর) ভোরে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে এ ধর্মীয় সমাবেশ শেষ হবে। ইজতেমায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২০ জেলার অন্তত ১ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি অংশ নিয়েছেন। তাদের পাদচারণায় টুঙ্গিপাড়া এখন মুখরিত।

গওহরডাঙ্গা মাদ্রাসা থেকে টুঙ্গিপাড়া জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধ মাত্র দুই কিলোমিটার দূরে। তাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় গেছেন মুসল্লিরা। সেখানে তারা জাতির পিতার জন্মভূমি, পৈতৃকবাড়ি ও সমাধিসৌধ কমপ্লেক্স দেখতে ভিড় করছেন।

রবিবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে মুসল্লিদের ঢল নামে। বিভিন্ন বয়সের মুসল্লিরা বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ ঘুরে ঘুরে দেখেছেন। এর আগে, শুক্র এবং শনিবারও বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে মুসল্লিদের সমাগম ছিল চোখে পড়ার মতো।

আরও পড়ুন- গোপালগঞ্জে আর্জেন্টিনা সমর্থকদের হামলায় পাঁচ ব্রাজিল সমর্থক আহত

সকালে সরেজমিনে দেখা গেছে, ইজতেমায় অংশ নেওয়া বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে এসেছেন। দলে দলে বিভিন্ন জেলার মুসল্লিরা বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে ঢুকছেন। আর জাতির পিতার জন্মভূমি, পৈতৃকবাড়ি ও সমাধিসৌধ কমপ্লেক্স ঘুরে ঘুরে দেখে আবার ইজতেমা মাঠে ফিরে যাচ্ছেন। এদের মধ্যে অধিকাংশই বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রথম এসেছেন। তবে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে আগত ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা বঙ্গবন্ধুর জন্য দোয়া-মোনাজাত করেছেন।

 ইজতেমায় আগত ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা বঙ্গবন্ধুর সমাধি দেখছেন/ ঢাকা ট্রিবিউন

ইজতেমায় অংশ নেওয়া ফরিদপুরের সালথা উপজেলার কাগদী মসজিদের ইমাম রফিকুল ইসলাম (৫৫) বলেন, “টুঙ্গিপাড়া উপজেলার গওহরডাঙ্গা মাদ্রাসায় তিন দিনের ইজতেমা চলছে। এতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ভোলা বাদে ২০ জেলার ওলামায়ে কেরাম ও তিন চিল্লার সাথীরাসহ প্রায় ১ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি অংশ নিয়েছেন। আমরা ইজতেমা ময়দান থেকে একটি দল বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে এসেছি। আমাদের মতো অনেক দল এখানে এসেছে। আমরা বঙ্গবন্ধুর জন্মস্থান, আদি পৈতৃক বাড়ি, সমাধিসৌধ দেখছি। এগুলো আমাদের কাছে ভালো লেগেছে। এছাড়া আমরা বঙ্গবন্ধুর রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া-মোনাজত করেছি।”

এজতেমায় অংশ নেওয়া বরিশালের শায়েস্তাবাদ গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মো. আমির হোসেন (৭০) বলেন, “বঙ্গবন্ধু আমাদের জাতির পিতা। তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সমাধিসৌধে দলবল নিয়ে এসেছি। বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে এটিই আমার প্রথম আসা। এখানে এসে তার ঐতিহাসিক বাড়িসহ সমাধিসৌধ দেখে আমার মন ভরে গেছে। তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি। তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পেরে আমি গর্ববোধ করছি।”

আরও পড়ুন- ৩১৩ কিলোমিটার হেঁটে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা

ইজতেমায় অংশ নেওয়া খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার সজিয়াডা কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ (১৮) বলেন, “বঙ্গবন্ধুর সম্পর্কে শুনেছি, পড়েছি। ইজতেমায় আসার সুবাদে বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধ ঘুরে দেখতে পেয়েছি। এটি আমার কাছে পরম পাওয়া। প্রিয় এই নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মনে মনে তার জন্য প্রার্থনা করেছি।”

ইজতেমায় অংশ নেওয়া বরগুনা কালেকটরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক জাহিদুল ইসলাম (৩৫) বলেন, “বইতে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জেনেছি। আজ তার বাড়িতে এসে ইতিহাসকে স্পর্শ করতে পেরেছি। জেনেছি নতুন নতুন তথ্য। আজকের দিনটি তাই আমার কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে।”

বঙ্গবন্ধু সমাধিসৌধের সহকারী কিউরেটর মো. নুরুল ইসলাম বলেন, “টুঙ্গিপাড়ায় ২০ জেলার ইজতেমা হচ্ছে। ইজতেমায় আগত ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা বঙ্গবন্ধুর সমাধি দেখছেন। এ কারণে এখানে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের ঢল নেমেছে।”

About

Popular Links