Friday, June 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বাংলাদেশে আঘাত হানবে না ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস’

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে দুই (০২) নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে

আপডেট : ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:৫৪ পিএম

দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত প্রবল ঘূর্ণিঝড় “মানদৌস” পশ্চিম-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর ও দুর্বল হয়ে একই এলাকায় ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে।

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ একেএম নাজমুল হক বলেছেন, “বাংলাদেশের উপকূলে প্রবল ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়ার কোনো সম্ভাবনা নেই এবং এটি ভারতের অন্ধ্র প্রদেশ ও তামিলনাড়ু উপকূল অতিক্রম করার সম্ভাবনা রয়েছে। যা দুর্বল হয়ে আছড়ে পড়ার সময় গভীর নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে।”

আবহাওয়া অধিদপ্তের বুলেটিনে বলা হয়, ঘূর্ণিঝড়টি ৯ ডিসেম্বর দুপুর ১২টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে এক হাজার ৬৯০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে এক হাজার ৬৪০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে এক হাজার ৫৫৫ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে এক হাজার ৫৬০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও পশ্চিম-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

আরও পড়ুন- বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস', সাগরে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটবর্তী এলাকায় সাগর বেশ উত্তাল রয়েছে।

বুলেটিনে আরও বলা হয়, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে দুই (০২) নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরের সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে উপকূলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে তাদেরকে গভীর সাগরে চলাচল না করতে বলা হয়েছে।

About

Popular Links