Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

শ্যামলী পরিবহনকে আপাতত ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ

১৫ এপ্রিল স্ত্রীর মরদেহ অ্যাম্বুলেন্স করে নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন সবজি বিক্রেতা আয়নাল হোসেন। পথে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে বগুড়ার শেরপুরে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের ঘোগা সেতুর পাশে অ্যাম্বুল্যান্সটিকে চাপা দেয় শ্যামলী পরিবহনের একটি বাস

আপডেট : ১৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:৫৩ পিএম

অ্যাম্বুল্যান্সে করে স্ত্রীর লাশ নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে বগুড়ার শেরপুরে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের ঘোগা বটতলা এলাকায় শ্যামলী এন আর ট্রাভেলসের বাসের চাপায় নিহত হন সবজি বিক্রেতা আয়নাল হোসেন ও অ্যাম্বুল্যান্সচালক দ্বীন ইসলাম। এ ঘটনায় নিহতদের পরিবার ও আহতদের চিকিৎসার জন্য আপাতত ১০ লাখ টাকা দিতে শ্যামলী এনআর পরিবহনকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বুধবার (১৪ ডিসেম্বর) বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালত বুধবারের মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের ৫ লাখ টাকা ও ১৫ দিনের মধ্যে আরও ৫ লাখ টাকা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির। শ্যামলী এনআর পরিবহনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম ও তারিকুল ইসলাম। বিআরটিএর পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট রাফিউল ইসলাম।

এছাড়াও শ্যামলী এনআর পরিবহনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শুভঙ্কর ঘোষ রাকেশকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি জানুয়ারি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে এই মামলার পরবর্তী আদেশের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন- লঞ্চে সিটে বসা নিয়ে তর্ক, ঘাটে লোকজন ডেকে যুবককে পিটিয়ে হত্যা

উল্লেখ্য, ১৫ এপ্রিল স্ত্রী ফিরোজা বেগমের মরদেহ অ্যাম্বুলেন্স করে নিয়ে গ্রামের বাড়ি ফিরছিলেন ঢাকার রূপনগরের সবজি বিক্রেতা আয়নাল হোসেন। পথে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে বগুড়ার শেরপুরে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের ঘোগা সেতুর পাশে অ্যাম্বুল্যান্সটিকে চাপা দেয় শ্যামলী পরিবহনের একটি বাস। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান আয়নাল। পরে অ্যাম্বুল্যান্সের চালকও মারা যান।

নিহত অ্যাম্বুলেন্স চালকের নাম দ্বীন ইসলাম (৪৫)। তার বাড়ি পিরোজপুর জেলার কাউখালী থানায়। এ ঘটনায় আহত হন আয়নাল হোসেনের তিন ছেলে ফরিদ হোসেন (২০), ফরহাদ হোসেন (১৮) ও ফিরোজ হোসেন (২৯)।

পরে ওই ঘটনায় ৩১ জুলাই ক্ষতিপূরণ চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেন অ্যাম্বুল্যান্সচালক দ্বীন ইসলামের স্ত্রী, সবজি বিক্রেতা আয়নাল হোসেনের মেয়ে, আয়নালের আহত তিন ছেলে, অ্যাম্বুল্যান্সচালকের আহত সহকারী ও অ্যাম্বুল্যান্স পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানের পরিচালক। এরপর ৭ আগস্ট সড়ক পরিবহন আইন অনুসারে দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দিতে গঠিত ট্রাস্টি বোর্ডের অধীনে ফান্ড গঠনের অগ্রগতি জানতে চান হাইকোর্ট। বোর্ডের চেয়ারম্যানকে এসব তথ্য জানাতে নির্দেশ দেন আদালত।

একই সঙ্গে অ্যাম্বুলেন্সে করে স্ত্রীর লাশ নিয়ে বাড়ি ফেরার সময় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সবজি বিক্রেতা আয়নালের পরিবারের সদস্য ও আহতদের ১ কোটি ৭১ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন আদালত।

সড়ক ও পরিবহন সচিব, আইন সচিব, বিআরটিএর চেয়ারম্যান ও শ্যামলী পরিবহনের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়।

About

Popular Links