Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

গাজীপুর সিটির ময়লা নিয়ে নোংরামি

বিবাদের জেরে পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক অবরোধ করেন। এতে সড়কের উভয়দিকে কয়েক কিলোমিটার দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়

আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৯:০১ পিএম

গাজীপুর মহানগরের বাইমাইল এলাকার ডাম্পিং স্টেশনে ময়লা ফেলাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে মারধর করা হয়। এর প্রতিবাদে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক অবরোধ করেন স্থানীয় কিছু পরিচ্ছন্নতাকর্মী। ফলে মহাসড়কের উভয় দিকে কয়েক কিলোমিটার দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

সোমবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত কোনাবাড়ির বাইমাইল এলাকায় বিক্ষোভ ও মহাসড়ক অবরোধ করেন পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা।

জানতে চাইলে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্বাস উদ্দিন খোকন ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “সিটি কর্পোরেশনের অনুমতি নিয়ে স্থানীয়ভাবে পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের মাধ্যমে ময়লা-আবর্জনা সংগ্রহ করে নির্ধারিত ডাম্পিং স্টেশনে ফেলা হচ্ছিল। আর এই কাজে পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের সহায়তা করেন ১২ নম্বর ওয়ার্ডের স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নাজমুল আলম সবুজ। তিনি তাদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান এবং অসুবিধা দূর করে থাকেন। ফলে পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের সঙ্গে তার সুসম্পর্ক রয়েছে।”

স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল আলম সবুজ জানান, পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের নেতৃত্ব দেওয়াকে মেনে নিতে পারছেন না স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী জিকু আহমেদ ও তার সঙ্গীরা। তাই পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের ময়লা ফেলার কাজে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন তিনি ও তার লোকজন। বিভিন্ন সময় পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের কাছে টাকা দাবি করেন তারা। 

সবুজের দাবি, এ নিয়ে প্রতিবাদ করলে তার সঙ্গে জিকুর শত্রুতা সৃষ্টি হয়। এর জেরে ৮ ফেব্রুয়ারি সবুজকে মারধর করেন জিকু ও তার সঙ্গীরা। এ ঘটনায় সবুজ বাদী হয়ে কোনাবাড়ি থানায় জিকুসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবিতে শ্রমিকরা সোমবার সকালে বিক্ষোভ ও মহাসড়ক অবরোধ করেন।

গাজীপুর মহানগরের বাইমাইল এলাকার ডাম্পিং স্টেশন/ ঢাকা ট্রিবিউন

স্থানীয় আওয়ামী লীগের কর্মী হিসেবে পরিচিত জাহাঙ্গীর আলম জিকু এ ব্যাপারে ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “বাইমাইল ছাড়াও অন্যান্য ওয়ার্ড এবং মৌচাক থেকে সিটি কর্পোরেশনের ৪০টি গাড়ি ময়লা সংগ্রহ করে। এসব গাড়ি থেকে প্রতি মাসে পাঁচ হাজার টাকা করে চাঁদা নেন সবুজ। ৮ ফেব্রুয়ারি দুপুরে একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে আমি পরিছন্নতাকর্মীদের চাঁদা দিতে নিষেধ করি। কিছুক্ষণ পর সবুজ আমাকে ফোন করেন এবং ময়লার ব্রিজের পাশে আসতে বলেন। এসে বলেন, ‘তুই চাঁদা দিতে না করার কে? আমি সবুজ চাঁদা নেই না, সব চাঁদা কাউন্সিলর নেয়'। এর আধা ঘণ্টা পর স্থানীয় কাউন্সিলর আব্বাছ উদ্দিন খোকন সেখানে পৌঁছান এবং তার গাড়িচালক কামাল গাড়ি থেকে লাঠি নিয়ে আসেন। এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি হয়।”

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) কোনাবাড়ি জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) দিদারুল ইসলাম ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, মামলার পর পর চার আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জিকুসহ অন্য আসামিরা পলাতক। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। তারপরেও শ্রমিকেরা আবেগের বশে বিক্ষোভ করেছেন। এক ঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধ ছিল। এতে গাড়ি চলাচলে সাময়িক অসুবিধা হয়। পরে তাদের বুঝিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে।”

About

Popular Links