Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

রোজার আগেই ব্যস্ততা বেড়েছে কুমিল্লার মুড়ির গ্রামে

এ গ্রামে শত বছর ধরে মুড়ি ভাজা হয়। হাতে ভাজা মুড়ির জন্য এ গ্রাম প্রসিদ্ধ

আপডেট : ১৮ মার্চ ২০২৩, ০১:২৬ পিএম

কুমিল্লার বরুড়ার উপজেলার লক্ষ্মীপুর গ্রাম। এ গ্রামে চলছে রমজান মাসের জন্য মুড়ি ভাজার ব্যস্ততা। এ গ্রামে শত বছর ধরে মুড়ি ভাজা হয়। হাতে ভাজা মুড়ির জন্য এ গ্রাম প্রসিদ্ধ। কাঠের চুলা জ্বালিয়ে মুড়ি ভাজছেন নারীরা। কেউ মুড়ি চালুন দিয়ে পরিষ্কার করছেন। পুরুষরা মুড়ি বস্তায় ভরে মুখ সেলাই করছেন।

শনিবার (১৮ মার্চ) সকাল ৮টায় লক্ষ্মীপুর গ্রামের প্রদীপ পালের বাড়িতে এ দৃশ্য দেখা যায়।

রমজান মাস এলেই কারও সঙ্গে কথা বলার সুযোগ নেই। পরিবারের ছেলে বুড়ো সবাই ব্যস্ত। গ্রামের পাশে পিকআপ ভ্যানে ও ট্রাকে তুলে দেওয়া হচ্ছে মুড়ির বস্তা। সেগুলো নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, কুমিল্লা, ফেনী, নোয়াখালী, চট্টগ্রাম, ঢাকা ও সিলেটে।

প্রদীপ পাল জানান, তারা সারা বছর মুড়ি ভাজেন। হাতে ভাজা মুড়ির চাহিদা রয়েছে। হাতে ভাজা মুড়িতে শুধু লবণ পানি দেওয়া হয়। এগুলো খেতেও সুস্বাদু। দাম একটু বেশি হলেও সচেতন মানুষ হাতে ভাজা মুড়িই বেশি খোঁজ করেন।

কুমিল্লায় আগে বরুড়ার রামমোহন বাজার সংলগ্ন গোপালনগর ও দাদিসারে বেশি মুড়ি ভাজা হতো। সেখানে এখন মুড়ি ভাজা কমে এসেছে। শুধু লক্ষ্মীপুরে বেশি ভাজা হয়। রোজার সময় তাদের মুড়ির চাহিদা বেশি। তাই ব্যস্ততাও বেশি। তারা এখন গিগজ ধানের মুড়ি ভাজছেন। আরও পরে ভাজবেন টাবি ধানের মুড়ি।

রমজান মাসে বেড়ে যায় হাতে ভাজা মুড়ির কদর ঢাকা ট্রিবিউন

হরি চরণ পাল জানান, গিগজ ও টাপি এ দুই রকমের চাল দিয়ে মুড়ি ভাজা হয়। জেলার লাকসামের বিজরা বাজার ও লালমাই উপজেলার বিজয়পুর বাজার থেকে এ দুই ধরনের চাল কিনে আনা হয়।

তিনি বলেন, “আমরা পাইকারদের কাছে ৫০ কেজির এক বস্তা বিক্রি করি প্রায় চার হাজার টাকায়। তারা এসে ট্রাক বা পিকআপ ভ্যানে করে মুড়ি নিয়ে যায়।”

ওই বাড়ির আরেক মুড়ি উৎপাদনকারী লতাবর্মণ পাল বলেন, “গ্রামের ৫০ পরিবার প্রতিদিন প্রায় ৯০ বস্তা মুড়ি ভাজেন। প্রতি বসায় ৪৫ কেজি মুড়ি থাকে। তারা পাইকারি প্রতি কেজি ১০০ টাকা থেকে ১১০ টাকা বিক্রি করেন। খুচরা বাজারে তা ১২০ থেকে ১৩০ টাকা বিক্রি হচ্ছে।”

কুমিল্লার চকবাজারের মুড়ি ব্যবসায়ী মো. জাকির হোসেন বলেন, “আমি দীর্ঘদিন ধরেই লক্ষ্মীপুর গ্রাম থেকে মুড়ি আনি। আমার কিছু নির্দিষ্ট ক্রেতা আছে, হাতে ভাজা মুড়ি কেনার। এ ছাড়া এখনও মেশিনে তৈরি মুড়ির তুলনায় হাতে ভাজা মুড়ির চাহিদা ভালো।”

লক্ষ্মীপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাশেম বলেন, “এখন হাতে ভাজা মুড়ি তেমন পাওয়া যায় না। তবে তাদের বাবা-দাদারাও এ কাজ করতেন। তারাও এ পেশায় নিয়োজিত আছে। একদম বিশুদ্ধ হাতে ভাজা মুড়ি তারা উৎপাদন করে। আমি অবশ্যই তাদের এ কাজ অব্যাহত রাখতে যা যা করা যায় করবো।”

About

Popular Links